লকডাউনে কাজ হারানো নাট্যকর্মীদের পাশে দাঁড়াতে বাইক নিয়ে খাবার ডেলিভারিতে ছুটছেন অভিনেত্রী সঙ্গীতা সরকার

করোনা পরিস্থিতিতে দ্বিতীয় বার রাজ্যে লকডাউন এর কারণে আবারো কাজ হারিয়েছেন সহস্র টলিউডের কলাকুশলী। সেইসঙ্গে কাজ হারিয়েছেন বাংলা থিয়েটারের কর্মীরাও। এবার সেই সমস্ত মানুষের পাশে দাঁড়াতেই স্রোতের বিপরীতে ভাসলেন থিয়েটার অভিনেত্রী সঙ্গীতা সরকার।

রবীন্দ্রভারতীর স্নাতকোত্তর দ্বিতীয় সেমিস্টারের ছাত্রী সঙ্গীতা পেশায় একজন নাট্যকর্মী। থাকেন বেলঘড়িয়াতে। কাজ হারানো নাট্যকর্মীদের দুরাবস্থা দেখে তাদের পাশে থাকার সিদ্ধান্ত নেন ২২ বছরের সঙ্গীতা।

বাইক চালানোয় তিনি অত্যন্ত দক্ষ। সেই বাইক নিয়েই এবার খাবার ডেলিভারি অ্যাপ জোম্যাটোর কর্মী হিসেবে কাজ শুরু করলেন তিনি। জোম্যাটোর ডেলিভারি গার্ল হিসেবে যা আয় করছেন তিনি তার সবটাই দান করছেন নাট্যকর্মীদের তহবিলে।

ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় নেটিজেনদের প্রশংসায় ভাসছেন সঙ্গীতা। কারণ তার বাবা কলকাতা পুলিশে কর্মরত। ফলে পরিবারের আর্থিক অনটন নেই। তা সত্বেও নিজের মূল্যবোধ এবং মানুষকে সাহায্য করার তাগিদ থেকেই এই কঠিন দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছেন সঙ্গীতা।

তবে নিজের সোশ্যাল মিডিয়া পোষ্টের মাধ্যমে সঙ্গীতা জানিয়েছেন প্রশংসার পাশাপাশি অনেক সমালোচনারও সম্মুখীন হতে হয়েছে তাকে। অনেকেই তার জোম্যাটোতে কাজ করা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।

আবার একজন মেয়ে হয়ে বাইক নিয়ে খাবার ডেলিভারি করার মত কাজ কেন তিনি বেছে নিলেন তা নিয়েও সমালোচনা করছেন অনেকে। তবে সঙ্গীতার কাছে কাজের কোন ভেদাভেদ নেই।

তাই সগর্বে তিনি বলেছেন যে তিনি টেবিলের তলা থেকে ঘুষ নিচ্ছেন না, বরং সৎ পথে উপার্জন করছেন। আপাতত রবীন্দ্রভারতীর বন্ধুদের সঙ্গে মিলে একটি তহবিল গড়েছেন সঙ্গীতা। এবং লোকের সমালোচনায় কান না দিয়ে সমান উৎসাহ নিয়েই এই কাজ চালিয়ে যেতে চান বলেও জানিয়েছেন।