জুতো সেলাই করছেন পিতা, পাশে বসে পড়াশোনা করছে ছেলে! দেখে কান্নায় চোখ ভিজে গেলো সবার

পৃথিবীতে বহু মানুষ এমন আছেন যারা কঠিন পরিশ্রমের পর সাফল্য অর্জন করেছেন। একসময় যেখানে বসে নিজের অসহায় দিন যাপন করেছেন ঠিক সেই জায়গাতেই গড়ে তুলেছেন রাজপ্রাসাদ।

ফুটপাতে থাকা মানুষরাও স্বপ্ন দেখে এবং সেই স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয়। ঠিক সেই রকমই এক দৃশ্যের সাক্ষী থাকলো গোটা ইন্টারনেট। বেশ কয়েকদিন ধরে বাবা ও ছেলের একটি ছবি ঘুরপাক খাচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়াতে।

ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে রাস্তার ধারে একপাশে জুতো সেলাই করছেন বাবা ঠিক তারপাশেই বসে পড়াশুনা করছে তার ছেলে। আইএফএস অফিসার সুশান্ত নান্দার এলাকায় এই দৃশ্য দেখতে পান এবং তিনি এই দৃশ্যের ছবি তুলে নিজের টুইটার একাউন্টে পোস্ট করেন এবং সাথে লেখেন “আগুন সর্বত্রই রয়েছে, কিন্তু সব আগুন উজ্জলিত হয় না।”

তিনি সেই শিশুটিকে উদ্দেশ্যে করে লেখেন। তার কথার অর্থ হল, অনেকে আছে বড় বড় রাজপ্রাসাদে থেকেও পড়াশুনা করতে চায়না কিন্তু এই শিশুটি যে তার বাবার পাশে রাস্তাতে বসেই নিজের পড়াশুনা চালিয়ে যাচ্ছে।

ছবিটি শেয়ার করবার সাথে সাথেই জ্বলন্ত আগুনের মতো পুরো ইন্টারনেটে ছড়িয়ে যায়। কেউ শিশুটিকে উৎসাহ দেওয়ার জন্য ভালো কিছু লেখেন আবার কেউ দেশের দুর্ভাগ্য বলে লেখেন।

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে শিশুদের প্রাথমিক শিক্ষাকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে করা হয়। এমনকি বহু দেশে প্রাথমিক শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করে দেওয়া হয়েছে। শুধু তাই নয় ভারতের সংবিধান মতে দেশের প্রত্যেকটি শিশুর প্রাথমিক শিক্ষা দেওয়া দেশেরই কাজ। কিন্তু সরকারের অবহেলার কারণে এই রকম বহু পরিকল্পনা দিন রাট ব্যহত হচ্ছে।

এই রকম অসহায় শিশুর ছবিটিকে দেখে যথারীতি তর্ক বিতর্কের সৃষ্টি হয়। যার ফলে বেশ মতবিরোধ দেখতে পাওয়া যায়। যতই মতবিরোধ তর্ক বির্তক হোক না কেন দেশের একাংশের এই হাল হয়ে রয়েছে।

খেটে খাওয়া মানুষদের, দিন আনি দিন খাওয়া মানুষদের এই ভাবেই পরিশ্রমের মাধ্যমেই নিজেদের জীবন পরিবর্তন করতে হবে। ঠিক এই কারণেই মহাপুরুষরা বলে গেছেন পরিশ্রমের কোনো বিকল্প নেই।