গোপনাঙ্গে হাত ১৫ বছরের ছেলের! নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ বিশ্বসুন্দরীর, নিজের সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনা ভাগ করে নিলেন সুস্মিতা সেন

যে কোনো অবস্থায়, যে কোনো স্থানে নারীদের হেনস্তার মুখে পড়তে হয়। সে কাজের জায়গায় হোক কি বাড়িতে। বসে হোক বা ট্রেনে সবাইকে কোনো না কোনো অস্বস্তিমূলক ঘটনার শিকার একবার না একবার হতেই হয়েছে। কেউ কেউ নিজের ভাগ্যের পরিহাস বলে মেনে নিয়েছেন তো কেউ কেউ জোর গলায় জানিয়েছেন প্রতিবাদ। তাদের মধ্যে পড়েন বিশ্ব সুন্দরী সুস্মিতা সেন।

বিশ্বসুন্দরী বরাবরই নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছেন তিনি। এমনকি বলিউডে “মি টু ” এর প্রতিবাদে সরব হতে দেখা গেছে তাকে। শুধু তাই নয় ব্যাক্তিগত ভাবে বহু মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন অভিনেত্রী।

এমনকি নিজের সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনাও শেয়ার করেছেন তিনি। নারী নির্যাতনকে কোনওভাবেই সমর্থন করা উচিত নয় বলেই মনে করেন তিনি। তিনি এও বলেন যে নির্যাতন করছে সে তো দোষী সাথে যিনি মুখবুজে নির্যাতিত হচ্ছেন তিনিও সমান দোষী।

নারী সুরক্ষা ও সচেতনতা নিয়ে যথেষ্ট জোরালো ভূমিকা পালন করে থাকেন সুস্মিতা। নিজের সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনা বলতে গিয়ে বলেন, একটি নারী সুরক্ষা বিষয়ক অনুষ্ঠানে চিফ গেস্ট ছিলেন তিনি। অভিনেতা অভিনেত্রীদের বহু জায়গায় যৌন হেনস্থার শিকার হতে হয়।

ঠিক তেমনি এক ঘটনা ঘটে বিশ্বসুন্দরীর সঙ্গে। ভক্তদের ভিড় এড়িয়ে যেই না সুস্মিতা গাড়িতে উঠতে যাবেন ঠিক সেই মুহূর্তে তার গায়ে অস্বস্তিকর এক স্পর্শ অনুভব করেন তিনি। মার্শাল আর্টে পারদর্শী সুস্মিতা ভিড়ের মধ্যেও ঠিক সেই ব্যাক্তিটির হাত ধরে ফেলেন এবং তাকে সঠিক শিক্ষা দিতে চান।

কিন্তু সেই ব্যাক্তিটিকে দেখে সুস্মিতা কিছু বলার মতো অবস্থায় ছিলেন না। তিনি দেখেন সেটি একটি ১৫ বছরের নাবালক। তারপর সুস্মিতা তাকে ভিড় ভাট্টা থেকে একটু দূরে নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে তার দোষ শিকার করে না পরে বেগতিক দেখে সে নিজের দোষ শিকার করে অভিনেত্রীর কাছে ক্ষমা চায়।

অভিনেত্রী তাকে ভালো করে বুঝিয়ে দেন যে সে কতবড় অপরাধ করতে যাচ্ছিল এবং তার এই রকম কাজ আর কখনো করা উচিত নয়। অভিনেত্রী তার ঘটনার দৃষ্টান্ত দিয়ে বলেন যে কখনোই নির্যাতন মুখ বুজে সহ্য করতে নেই। সর্বদা এই বিষয়ে জোর গলায় প্রতিবাদ জানানো প্রয়োজন।