Story

কেরিয়ারের শুরুতে মাত্র ৩৫ টাকা রোজগার করতেন রোহিত শেট্টি! বেশিরভাগ দিনই খাবার জুটত না ‘সিঙ্ঘম’ পরিচালকের, নিজেই জানালেন তার ঘুরে দাঁড়ানোর গল্প

বলিউডের বর্তমান জনপ্রিয় প্রথম সারির পরিচালকদের মধ্যে অন্যতম হলেন রোহিত শেট্টি। বলিউডের রোহিত শেট্টি হয়ে ওঠার জন্য অনেক ওঠা পড়ার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে পরিচালককে। শোনা যায়, পরিচালকের একটা সময় গেছে যখন ঠিকমতো পর্যাপ্ত খাবার জোগাড় করতে পারতেন না। হেঁটে গোটা শহর কাজের জন্য ঘুরে বেড়াতেন শুধুমাত্র টাকা বাঁচানোর উদ্দেশ্যে। শুরুর দিকে নাকি মাত্র ৩৫ টাকা রোজগার করতেন রোহিত শেট্টি। নিজেই স্বীকার করলেন সেকথা।

বর্তমানে বলিউডের ফিল্মি দুনিয়ায় রোহিত শেট্টি একটা বড় নাম। তাবড় তাবড় অভিনেতা-অভিনেত্রীরা তার সাথে কাজ করতে আগ্রহী থাকেন। অভিনেতা-অ্যাকশন ডিরেক্টর এমবি শেট্টির ছেলে তিনি। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে পরিচালক জানিয়েছেন, কেরিয়ারের শুরুটা একদমই ভাল ছিল না তার জন্য। অনেক কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছে তাকে। কখনো কখনো এমন সময় গিয়েছে যখন তিনি মাত্র ৩৫ টাকা রোজগার করে সন্তুষ্ট থেকেছেন। কাজের জন্য সেটে সেটে ঘুরে বেড়িয়েছেন। যেহেতু শুরু থেকেই উপরে ওঠার একটা খিদে তার মধ্যে ছিল, সেই খিদেই আজকে তাকে বলিউডের অন্যতম সেরা পরিচালক করে তুলেছে।

তিনি আরো জানান, সেইসময় তার এতটাই খারাপ অবস্থা ছিল যে তার থাকার কোন জায়গা ছিল না। দাহিসারে নিজের ঠাকুমার কাছে থাকতেন তিনি। গাড়ি ভাড়া বাঁচানোর জন্য হেঁটে হেঁটে গন্তব্যে যেতেন পরিচালক। তিনি এও বলেন, এখনও তিনি তার ড্রাইভারকে প্রয়োজনে রাস্তা চিনিয়ে দেন। খুব স্বাভাবিক ভাবেই সে অবাক হয়ে তার দিকে তাকিয়ে থাকে। কষ্ট করে, পরিশ্রম করে এত উপরে উঠেছেন তিনি। শূন্য থেকে শুরু করার মানেটা তিনি খুব ভালোভাবেই জানেন।

সম্প্রতি তার পরিচালিত বহু প্রতীক্ষিত ‘সূর্যবংশী’ ছবিটি মুক্তি পেয়েছে বড়পর্দায়। দর্শকরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেছিলেন এই ছবিটির মুক্তির আশায়। উল্লেখ্য, করোনা পরিস্থিতিতে সবথেকে বেশি ব্যবসা করা ছবির তালিকায় এখন প্রথমেই রয়েছে ‘সূর্যবংশী’।

বর্তমানে বলিউডে দুটি ফ্যাঞ্চায়েজি তৈরি করেছেন তিনি। গোলমাল আর কপ ড্রামা। দুটোই একেবারে হিট ইন্ডাস্ট্রিতে। এই পরিচালক ‘বোল বচ্চন’, ‘চেন্নাই এক্সপ্রেস’, ‘দিলওয়ালে’, ‘সিঙ্ঘাম’, ‘সিম্বা’র মতো একাধিক জনপ্রিয় হিট ব্লকবাস্টার ছবি উপহার দিয়েছেন দর্শকদের। সম্প্রতি ‘খাতরো কে খিলারী’তেও সঞ্চালকের ভূমিকায় দেখা মিলেছিল রোহিত শেট্টির।

Back to top button