সংসারে দারিদ্র্য, তাই অবাঞ্ছিত নেহা কক্করকে মেরে ফেলতে চেয়েছিলেন বাবা-মা! প্রতি জন্মদিনে যে কাহিনী কষ্ট দেয় গায়িকাকে

বলিউডি সঙ্গীতের জগতে নেহা কক্কার একজন জনপ্রিয় নাম। একাধিক সিনেমায় প্লেব্যাকের পাশাপাশি বলিউডের প্রথম সারির সমস্ত গায়ক এবং সঙ্গীত পরিচালকদের সঙ্গে ইতিমধ্যেই কাজ করে ফেলেছেন ৩৩ বছরের নেহা।

গতকাল অর্থাৎ ৬ ই মার্চ ছিল নেহার জন্মদিন। রোহনপ্রীত সিংয়ের সঙ্গে বিয়ের পর এই প্রথম জন্মদিন নেহার। সোশ্যাল মিডিয়া গতকাল ভরে যায় অনুগামী থেকে শুরু করে বলিউডের অন্যান্য সেলিব্রেটিদের শুভেচ্ছাতে।

যে নেহা আজ এত সফল তিনি কিন্তু জন্মের আগেই প্রায় মারা যেতে বসে ছিলেন। এ গল্প প্রকাশ্যে এনেছেন নেহার দাদা টনি কক্কর খোদ।

তিনি জানান প্রচন্ড কষ্টের মধ্যে দিয়ে কেটেছে তাদের ছোটবেলা। নেহার দিদি সনু এবং দাদা টনির জন্মের পর অজান্তেই আবারো গর্ভবতী হয়ে পড়েন তাদের মা। গরিবের সংসারে তিন ছেলেমেয়েকে বড় করার সামর্থ্য না থাকায় তার বাবা এবং মা চেয়েছিলেন গর্ভপাত করাতে।

তবে ততদিনে প্রায় ৮ মাস অতিক্রান্ত হয়ে যাওয়ায় তা আর তারা করতে পারেননি। তবে এই কথা নেহার মুখেও বারংবার উঠে এসেছে যে প্রচন্ড দুঃখ কষ্টের মধ্যে দিয়ে কেটেছে তার ছোটবেলা। তিনি এবং তাঁর দুই দাদা দিদি বিভিন্ন জাগরন পুজোয় গান গেয়ে টাকা আয় করে সংসার চালাতেন অত্যন্ত ছোটবেলা থেকে।

তবে টনির গল্প শুনে অনুগামীরা বলছেন ভাগ্যিস তার বাবা-মা চূড়ান্ত সিদ্ধান্তটা নিতে পারেননি নইলে এত ভালো একজন গায়িকার গান শোনা থেকে বঞ্চিত হতে হতো দর্শকদের।