শারীরিক প্রতিবন্ধকতাকে হারিয়ে আজ সফল বাচিকশিল্পী দুর্গাপুরের দেবস্মিতা

অনেক সময় আমরা দেখি শারীরিকভাবে প্রতিবন্ধী শিশুর জন্ম দিলে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন বাবা-মা। কারণ আর পাঁচটা বাচ্চার থেকে আলাদা এই সমস্ত শিশুর জন্য দরকার হয় ‘স্পেশাল কেয়ার’।অনেক বেশি ধৈর্য ধরতে হয় বাবা-মাকে। তবে হাল না ছেড়ে তাদেরকে সময় দিলে তারাও যে হয়ে উঠতে পারে বাকিদের মতো প্রতিভাবান এবং অপ্রতিরোধ্য তার অন্যতম উদাহরণ হল দুর্গাপুরের দেবস্মিতা নাথ।

ছোটবেলায় তার শারীরিক বিকাশ অন্য বাচ্চাদের তুলনায় ধীরে হওয়ায় তাকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে গিয়েছিলেন তার মা। সেখান থেকেই তিনি জানতে পারেন দেবস্মিতার মানসিক বিকাশ অন্য বাচ্চাদের তুলনায় ধীরে ঘটবে। ভেলোরে পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া হয় এরপর দেবস্মিতাকে।

কিন্তু তার শারীরিক অসুস্থতার কোন ওষুধ না পেয়ে শেষ পর্যন্ত তার মা তাকে নাচ, গান ও আবৃত্তির মত শিল্পের সঙ্গে অত্যন্ত ছোট বয়স থেকেই পরিচয় করিয়ে দেন।

গান বা অন্যান্য শিল্পের দিকে দেবস্মিতার আগ্রহ না থাকলেও ধীরে ধীরে দেখা যায় আবৃত্তি কেড়ে নিচ্ছে তার যাবতীয় ধ্যানজ্ঞান।
অত্যন্ত ছোট বয়সে স্কুল জীবন থেকেই শুরু করেন বিভিন্ন জায়গায় আবৃত্তি প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করা। এর জন্য স্কুলে শিক্ষিকাদের কাছে বিদ্রূপের সম্মুখীনও হতে হয় তাকে। তবে হাল ছাড়েননি তিনি এবং তার মা।

কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে আজ দেবাস্মিতা একজন সফল আবৃত্তিশিল্পী রয়েছে তার নিজের আবৃত্তির অ্যালবামও। মাত্র ২০ বছর বয়সেই তিনি অনুষ্ঠান করে ফেলেছেন কলকাতার প্রায় সমস্ত বড় মঞ্চে। আবৃত্তিকার ব্রততী বন্দোপাধ্যায় এর অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ এবং প্রিয় ছাত্রী তিনি। বর্তমানে শুধু একা নয়, দেবস্মিতা তার আবৃত্তির প্রতি ভালোবাসা ছড়িয়ে দিচ্ছেন তার অসংখ্য ছাত্র-ছাত্রীর মধ্যে।