Story

প্রসেনজিৎ নয়, ইন্ডাস্ট্রি একজনই ছিলেন উত্তম কুমার! এমনটাই বিশ্বাস করেন দেবশ্রী রায়, বিয়ে ভাঙা থেকে রানির মেয়ের জন্মদিনে ডাকনা পাওয়া সবকিছু নিয়ে অকপটে দেবশ্রী রায়

আসির দশকের শেষে বাংলা ইন্ডাস্ট্রির অন্যতম পছন্দের জুটি ছিলেন প্রসেনজিৎ(Prasenjit Chatterjee)-দেবশ্রী(Debashree Roy)। তবে টলিউড(Tollywood) ইন্ডাস্ট্রিতে তারা ছেলেবেলার বন্ধু হিসেবে বেশি পরিচিত ছিল। সেই বন্ধুত্বকে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছিলেন ছাদনাতলা পর্যন্ত। ১৯৯২ সালে ছাদনাতলায় বসেছিলেন দুজনে। তবে সেই সম্পর্ক বেশিদিন টেকেনি। তিন বছর পরেই ভেঙে গিয়েছে দেবশ্রী প্রসেনজিতের ঘর।সেই নিয়ে অবশ্য কম জলঘোলা হয়নি।

এরপর কেটে গিয়েছে বেশ কয়েকটি দশক। প্রথম বিয়ে ভাঙার পর হঠাৎ করে অপর্ণা গুহ ঠাকুরতাকে বিয়ে করেছিলেন প্রসেনজিৎ। তাদের মেয়ে প্রেরণা। কিন্তু নিজেদের সুখের সংসার ভেঙে হঠাৎ করেই প্রসেনজিৎ প্রেমে পড়েছিলেন টলিউডের উঠতি নায়িকা অর্পিতার। যার জন্য নিজের সংসার ভেঙে যেতে একবারও ভাবেননি প্রসেনজিৎ।

যদিও অর্পিতাকে নিয়ে সুখী গৃহকোণ তৈরি করেছেন প্রসেনজিৎ তাদের একমাত্র পুত্র তৃষানজিৎ। ছেলেবেলার বন্ধু বুম্বার সঙ্গে বিয়ে ভাঙ্গার পর থেকে চুমকি কিন্তু আর বিয়ের পিঁড়িতে বসেনি। বরং নিজের ক্যারিয়ার নিয়ে এগিয়ে গিয়েছেন। পা রেখেছেন সমাজসেবা থেকে রাজনীতিতে। দীর্ঘ বছর পর ছোট পর্দায় সর্বজয়া দিয়ে শুরু করেছেন দ্বিতীয় পর্বের ক্যারিয়ার জীবন। তবে আপাতত রাজনীতি থেকে তিনি শত হাত দূরে।

সবকিছু নিয়েই অকপটে জানিয়েছেন দেবশ্রী রায়। কয়েক মাস আগে প্রসেনজিৎ এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন প্রথম পক্ষের স্ত্রী দেবশ্রীর সঙ্গে কথা বলে সবকিছু মিটমাট করে নিতে চান তিনি। এর মাঝেই হঠাৎ গুঞ্জন আসে দেবশ্রীর কাছে নাকি প্রস্তাব এসেছে প্রসেনজিতের তরফ থেকে অভিনয়ের জন্য। এই ব্যাপারে অভিনেত্রীকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন শুরুতেই শুধরে দিই একটা মানুষ কখনো ইন্ডাস্ট্রি হতে পারে না।

বাংলা ছবির ইন্ডাস্ট্রি সবাইকে নিয়ে। আমি অভিনেত্রী তাই সহশিল্পী কে হবেন সেই নিয়ে মাথাব্যথা নেই। দেখা যাক কি হয়? এখন কিছু বলতে পারব না। প্রসঙ্গত তিনি আরও বলেন ইন্ডাস্ট্রি প্রসঙ্গে বলি উনি ছিলেন উত্তম কুমার। কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে উদ্বোধনী মঞ্চে এক ফ্রেমে পাওয়া গিয়েছিল প্রসেনজিৎ এবং রানী মুখোপাধ্যায়কে। কিন্তু সেখানে হাজির ছিলেন না দেবশ্রী। সাফ জবাব দিলেন অনেক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে থালি গার্ল হয়েছি। সত্যজিৎ রায়ের পাশে দাঁড়িয়েছি এসবের দরকার নেই। পাশাপাশি সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জানিয়েছিলেন যোগ্য সম্মান না পাওয়ার জন্যই ফিল্ম ফেস্টিভালে হাজির হননি তিনি।

তবে ব্যস্ত সিডিউলের মাঝে রানী শহরে এলেও দেখা হয়নি মাসির সঙ্গে। পাশাপাশি নিজের মেয়ে আদিরার জন্মদিনে তাকে নেমন্তন না করা নিয়ে মুখ খুললেন দেবশ্রী। দেবশ্রীর মা মারা যাওয়ার জন্যই রানী বড় মুখ করে মাসিকে আমন্ত্রণ জানাননি মেয়ের জন্মদিনে। তবে এসব নিয়ে বেশি মাথাব্যথা নেই তার। আগামী দিনে অভিনয়ের পাশাপাশি নিজের নাচের গ্রুপের উপর মন দিতে চান তিনি।

Back to top button