Storyবলিউড

বনগাঁর মেয়ে অরুণিতা আজ পৃথিবী বিখ্যাত! বাংলার নাম উজ্জ্বল করেছে অরুনিতা কাঞ্জিলাল! রইল তার আসল পরিচয়

অরুনিতা কাঞ্জিলাল নামটির সাথে পরিচয় এখন সব দর্শকেরই। তাকে চেনেন না হয়তো এরকম দর্শক আজকের দিনে দাঁড়িয়ে খুব কম। সুরের জাদুতে সেই ছোট্ট মেয়েটি মন মাতিয়েছে সকলের। তবে যার সুরে মেতে থাকে সবাই তার আসল পরিচয় কি সবাই জানেন! টেলিভিশনের দৌলতে কমবেশি সবাই জানেন যে তিনি পশ্চিমবঙ্গের বনগাঁর মেয়ে। এছাড়াও রয়েছে আরো অনেক কিছু যা হয়তো সকলেরই অজানা।

অরুনিতা কাঞ্জিলালের জন্ম ২০০৩ সালের পশ্চিমবঙ্গের বনগায়। মাত্র ১৭ বছর বয়সী মা ছিলেন নিজেও একজন গায়িকা। উল্লেখ্য মায়ের দৌলতেই অরুনিতার প্রথম গানের তালিম নেয়া শুরু। মায়ের আগ্রহেই মাত্র চার বছর বয়স থেকে ক্লাসিক্যাল গানের তালিম নেয়া শুরু করেছিলেন তিনি। সংগীতের উচ্চশিক্ষার জন্য ভর্তি হন পুনের গুরু রবীন্দ্র গাঙ্গুলীর কাছে।

২০১৩ সালে জি বাংলার অত্যন্ত জনপ্রিয় সংগীতের রিয়ালিটি শো সারেগামাপা লিটল চ্যাম্প অংশগ্রহণ করেছিলেন অরুনিতা। সেই রিয়্যালিটি শো-এর বিজয়ী হয়েছিলেন তিনি। ২০১৪ সালের জিটিভিতে সারেগামাপা লিটিল চ্যাম্প এ অংশগ্রহণ করেন। সেখানে ‘মেরে ওয়াতান কে লোগো’ গানটি গেয়ে সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন। জায়গা করে নিয়েছিলেন সেরা পাঁচ জন প্রতিযোগীর মধ্যে। এই দৌলতে তার গান শেখার সুযোগ হয় মোনালি ঠাকুরের কাছ থেকে।

শুধু দেশেই নয় বিদেশেও প্রথম স্টেজ শো লাইভ পারফরম্যান্স করেছেন অরুনিতা কাঞ্জিলাল। এর পাশাপাশি রয়েছে তার নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেল। ইন্ডিয়ান আইডল তার জীবনের টার্নিং পয়েন্ট হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেখানে তার গান এতটাই প্রশংসিত হয়েছে যে হিমেশ রেশমিয়া একটি মিউজিক ভিডিওতে অরুনিতাকে দিয়ে গান গাওয়ান। ইন্ডিয়া আইডলের সিজেন ১২ এ সবচেয়ে বড় পাওনা হলো পবনদ্বীপের সাথে তার বন্ধুত্ব। এই বন্ধুত্ব দুজনেই ভবিষ্যতে বজায় রাখতে চান এমনটাই জানিয়েছেন।

Back to top button