বিজেপি অফিসে ঢুকতে বাধা দলত্যাগী সুনীল মণ্ডলকে,তৃণমূল কর্মীদের বিক্ষোভে ধুন্ধুমার হেস্টিংসে

সম্প্রতি দলবদল করেছেন অনেক তৃণমূল নেতাই৷ পদত্যাগ করেছেন শুভেন্দু অধিকারী সহ আরও অনেক সামনের সারির তৃণমূল নেতৃত্ব৷ তাদের প্রত্যেকের গলাতেই শোনা গেছিল দল সম্পর্কে বিরূপ মন্তব্য! দলের প্রতি ক্ষোভ তারা উগড়ে দিয়েছিলেন প্রকাশ্যেই৷ যেসব তৃণমূল নেতারা ইস্তফা দিয়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন,তাদের ঘিরে অসন্তুষ্ট তৃণমূলের একাংশ৷ এবার তা নিয়েই ধুন্ধুমার হল হেস্টিংসে বিজেপি অফিসের কাছে৷ দলত্যাগী সুনীল মণ্ডল শনিবার সকালে বিজেপির কার্যালয়ে প্রবেশ করতে গিয়ে তৃণমূল কর্মীদের বাধার সম্মূখীন হন৷ তাকে ঘিরে বিক্ষোভে সামিল হন তৃণমূল কর্মীরা,এমনকি কালো পতাকাও দেখান তারা৷ রাস্তায় শুয়ে পড়েন ঘাসফুল শিবিরের কর্মীরা,সাংসদের গাড়ি আটকানোর জন্য৷

ঘটনাস্থলে পুলিশ এলেও স্বাভাবিক হয় না পরিস্থিতি৷ পুলিশের সামনেই বিজেপি কর্মীদের সাথে শুরু হয় ধাক্কাধাক্কি৷ আজ সকালে হেস্টিংসে বিজেপির পার্টি অফিসে তৃণমূল ত্যাগী নেতাদের বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয়৷ তৃণমূল কর্মীদের পাশাপাশি বিজেপি কর্মীরাও শ্লোগান দিতে শুরু করেন৷এদিন বিজেপির পার্টি অফিসে একটি বৈঠক হওয়ার কথা! যেভাবে সদ্য প্রাক্তন তৃণমূল নেতা সুনীল মণ্ডলকে বিজেপির পার্টি অফিসে ঢুকতে গিয়ে বাধা পেতে হল,তা নিন্দনীয়,অন্তত এমনটাই বলেন বিজেপি নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার৷ তিনি বলেন,”তৃণমূলের ক্ষমতা দখল করে রয়েছে দক্ষিণ কলকাতার মুষ্টিমেয় কয়েকজন নেতা৷ তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করেন না৷ মানুষের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেন না৷ পুলিশ আগে দলদাস ছিল৷ এখন ক্রীতদাসে পরিণত হয়েছে৷”

তিনি আরও বলেন,” আমাদের রাজ্যের আইন শৃঙ্খলার অবনতি হয়েছে ভয়াবহভাবে৷শুধু কলকাতা নয়,গোটা রাজ্যেই পুলিশ আর গুণ্ডা দিয়ে ক্ষমতা রাখতে চাইছে তৃণমূল৷” পাশাপাশি জয়প্রকাশবাবু নাড্ডার কনভয়ে হামলা নিয়ে রাজ্য সরকারেরূ বিরুদ্ধে নিন্দায় সরব হন৷ অন্যদিকে শনিবারের ঘটনার সমালোচনা করেন অর্জুন সিং—ও৷ সুনীল মণ্ডলকে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছিলো না বিজেপির পার্টি অফিসে৷ পুলিশের উপস্থিতিতেও সামাল দেওয়া যায়নি পরিস্থিতি৷ তারপর বিজেপির কিছু কর্মী ও সুনীলবাবুর ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষীরা তাকে উদ্ধার করে নিয়ে যান৷ সুনীল মণ্ডলের তরফে অবশ্য এখনও কোনো প্রতিক্রিয়া মেলেনি৷

প্রবীণ নেতা সৌগত রায়ের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি বলেন,”ঘটনাটি প্রত্যক্ষভাবে জানিানা৷ তবে মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে৷ একটা লোক তৃণমূলের টিকিটে দু’বার জিতে পার্টি ছেড়েছে,এটা লোকে মেনে নিতে পারছে না৷” এমনকি সুনীল মণ্ডলের বিরুদ্ধে পার্টি ব্যবস্থা নেবে বলেও জানান সৌগতবাবু৷ ঘটনার পর আজ চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে গোটা এলাকায়৷