“দুয়ারে দুয়ারে সরকার” প্রকল্পে ফাণ্ড হচ্ছে সরকারি টাকা, বিস্ফোরক দিলীপ ঘোষ

mamata banerjee dilip ghosh
mamata banerjee dilip ghosh

আর ঠিক কয়েকটা মাস,তারপরই বেজে উঠবে ভোটের ঘন্টা৷ ফলে প্রতিটি রাজনৈতিক দল নিজের আখেড় গোছাতে তৎপর৷ একদিকে তৃণমূল একটুও জায়গা ছাড়তে রাজি নয়,অন্যদিকে বিরোধীপক্ষরাও তাদের মতো করে বাংলায় গড়ে তুলতে চাইছে ঘাঁটি৷ সুতরাং সামনে অগ্নিপরীক্ষা দিতে চলেছে তৃণমূল৷ নির্বাচন সূচি এখনও অবধি ঘোষিত না হলেও মমতার বাহিনীর তরফে ঘোষিত হয়েছে নানান প্রকল্প৷ ২০২১—এ মুখ্যমন্ত্রী তার বাংলায় পুনরায় শাসনক্ষমতা নিজের হাতেই পেতে চলেছেন এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ তিনি রাখেন না৷

বাঁকুড়ার সিধু কানহু স্টেডিয়ামে আয়োজিত একটি সরকারি অনুষ্ঠান থেকে মমতা ব্যানার্জী ঘোষণা করেন যে তারাই আবারও ২০২১—এ ক্ষমতায় আসছেন এবং আগামী বছরের জুন মাস পর্যন্ত সম্পূর্ণ বিনামূল্যে রেশন পাবেন রাজ্যের মানুষ৷ ক্ষমতায় ফিরেই এই সুবিধার মেয়াদকাল আরও বাড়িয়ে দেবে বলেও প্রতিশ্রুতি দেন মমতা৷

জানিয়ে রাখা ভালো যে ইতিমধ্যে সরকার ঘোষণা করেছে তার নতুন প্রকল্প “দুয়ারে দুয়ারে সরকার”,যা কার্যত আজ থেকেই শুরু হয়ে যাচ্ছে গোটা রাজ্যে৷ এই প্রকল্পকে বাস্তবের মাটিতে প্রতিষ্ঠা দিতে প্রায় ২০,০০০ক্যাম্প হবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দোপাধ্যায়৷ মানুষের স্বার্থে এবং মানুষের প্রতিটা দরকারে কীভাবে সরকার পাশে থাকে তা স্পষ্ট করা এবং নিজেকে একজন যোগ্য শাসক হিসেবে প্রমাণ করাই যে এই প্রকল্পের অন্যতম উদ্দেশ্য তা মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের অনেকেই৷ প্রাক—নির্বাচনের বাংলায় দাঁড়িয়ে এই প্রকল্পকেই একপ্রকার হাতিয়ার করছে তৃণমূল সরকার৷

এদিনের অনুষ্ঠান থেকে তিনি এও জানান যে মানুষের কাছে সরকারি পরিষেবা পৌঁছবে ১লা ডিসেম্বর থেকে ৩০শে জানুয়ারির মধ্যে৷ অর্থাৎ এখন মুখ্যমন্ত্রীর চোখ শুধুই ২০২১—এর দিকে ,তা তার ঘোষণা থেকে একেবারে স্পষ্ট৷ তবে এবারেও বিজেপির আক্রমণ থেকে বাঁচল না তৃণমূল সরকারের এই প্রকল্প৷ বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ সোমবার এক সাংবাদিক বৈঠকে কটাক্ষ করে বলেন যে সরকারের টাকা খরচ করে আসলে দলের প্রচার চালাচ্ছে তৃণমূল ,প্রকল্প শুধু একটা বাহানা মাত্র৷ দিলীপবাবু এও বলেন যে দলের অনুষ্ঠানের মঞ্চ থেকে সরকারি প্রকল্প ঘোষণা করা হল মানেই দল আর সরকার আলাদা নেই৷দলের কাজে লাগানো হচ্ছে সরকারের টাকা৷ নির্বাচন যত এগোচ্ছে ততই বিরোধীপক্ষের আক্রমণ বাড়ছে শাসকদলের প্রতি৷