“পিকে’র টিমকে কেউ মানছে না”, এবার ক্ষোভ প্রকাশ TMC নেতা বাণী সিংহ রায়ের

২০২১—এর বিধানসভা নির্বাচনের বিরোধীদের সুর চড়াও হচ্ছে বাংলায়, তা বেশ ভালোরকমভাবেই বুঝতে পারছে শাসকদল৷ তাই যেন তেন প্রকারেণ নিজের ঘাঁটি শক্ত করতে মরিয়া তৃণমূল কংগ্রেস৷ ভোটের রাজনীতির দিককে আরও প্রভাবপূর্ণ করতে দলের পরিচালনার ভার তৃণমূল সুপ্রিমো দিয়েছেন প্রশান্ত কিশোরের টিমকে৷ তবে তা নিয়ে মোটেই খুশি নন দলের বিধায়ক থেকে শুরু করে জেলার স্থানীয় নেতারাও! তাদের একটাই স্পষ্ট কথা তাদের থেকে বাংলাকে কি পিকে ভালোভাবে চেনে?

শুভেন্দু অধিকারী থেকে শুরু করে একের পর এক বিধায়ক , নেতাদের গলাতেই শোনা যাচ্ছে বেসুরো গান৷ শুভেন্দু অধিকারী বেশ পুরোনো একজন নেতা,তার যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্নহীন অনেকেই৷ সেই শুভেন্দুই পদত্যাগ করেছেন মন্ত্রীত্ব থেকে, যদিও এখনও দল ছাড়েননি তিনি৷ তবে খুব শীঘ্রই যে ছাড়বেন সে ছবি স্পষ্ট৷ এরপর একে একে ব্যারাকপুরের বিধায়ক শীলভদ্র দত্ত থেকে শুরু করে বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় ,এমনকি জেলার দলীয় নেতাদের মধ্যেও অসন্তোষ প্রকাশ্যে এসেছে৷

দলের অভ্যন্তরের নানা ইস্যু তো আছেই,তাছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে পিকের টিমের হস্তক্ষেপ৷ এবার এ বিষয়ে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন বর্ষীয়াণ তৃণমূল নেতা বাণী সিংহ রায়৷ তিনি ছিলেন হাওড়া পৌরসভার প্রাক্তন মেয়র পারিষদ ৷পিকের টিমকে আক্রমণ করে তিনি বলেন, “যে বাংলার রাস্তাঘাট চিনল না,জেলা মহকুমা চিনল না,বাংলায় কত ধর্ম,বর্ণ ,ভাষাভাষীর মানুষ রয়েছে জানল না সেই প্রশান্ত কিশোর এসে বিধানসভা ভোটে জিতিয়ে দেবে?”

পাশাপাশি তিনি আরও বলেন যে শুভেন্দু চলে যাওয়াতে দলের যে কি ক্ষতি হল তা হয়তো এখনই বোঝা যাবে না৷ ভোটের ফলাফলই বলে দেবে৷ সবুজশিবিরে ক্রমেই বেড়ে চলেছে অসন্তোষ! পিকের টিমকে নিয়ে খুশি নন দলের নেতারাই৷ এমনকি শীলভদ্র দত্ত জানিয়েও দিয়েছেন যে তিনি নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে দাঁড়াবেন না৷ দলীয় নেত্রী মমতা ব্যানার্জী কেন্দ্রীয় নেতাদের “বহিরাগত” বলে কটাক্ষ ছুঁড়ে দেন প্রায়ই৷ কিন্তু নিজের পার্টিতে পিকের টিমকে বহিরাগত বলে দাবী জানাচ্ছেন বিধায়ক থেকে শুরু করে সামনের সারির নেতারাও!

বাণী সিংহ রায় আরও অভিযোগ করেন,”পিকে’র টিমকে কেউ মানছে না৷ দলে এ নিয়ে কাকে বলবো? দেওয়ালকে?” শুভেন্দু,রাজীব,শীলভদ্রের পর তবে কি এবার দলের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী বাণীও? এর আগে বৈশাখী ডালমিয়া,জটু লাহিড়ী,রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য্যকে দেখা গেছে পিকে’র টিম নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করতে৷ সুতরাং পিকে’র টিমের হাতে দল পরিচালনার ভার দেওয়াই কি তবে তৃণমূলের ঘাঁটি নড়িয়ে দিচ্ছে বাংলার মাটিতে? প্রশ্ন থাকবে, উত্তর দেবে ২০২১!