বীরভূমের প্রভাব মঙ্গলকোটকেও গরম করুক চাইনা, অনুব্রতকে ফের খোঁচা সিদ্দিকুল্লার

২০২১—এর আগে তৃণমূলের অভ্যন্তরে গৃহযুদ্ধ দিন দিন বেড়েই চলেছে৷ পূর্ব বর্ধমানের মঙ্গলকোট নিয়ে আবারও তর্কে জড়ালেন সিদ্দিকুল্লা আর তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডল৷ রাজ্যের মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা আর অনুব্রত মণ্ডলের সম্পর্কের মধ্যেকার বিতর্ক আর কোন্দল এল প্রকাশ্যে৷

সিদ্দিকুল্লা এবার নিজের দলের কর্মীদের বিরুদ্ধে তীব্র অভিযোগ আনেন৷ তিনি দাবী করেন যে তারই দলের কর্মীরা গ্রামবাসীদের হুমকি দেন রাজ্যের মন্ত্রী? আরও বলেন,”দলের স্বার্থে সাড়ে চারবছর সহ্য করেছি,সহ্যের একটা সীমা আছে”৷ পাশাপাশি অনুব্রত মণ্ডলকে কটাক্ষ করে বলেন যে বীরভূমে অনুব্রত নেতৃত্ব দিচ্ছেন ভালো কথা কিন্তু বীরভূমের গরম হাওয়া মঙ্গলকোটকে গরম করুক তা তিনি কোনোভাবেই চান না৷ হলে তা বরদাস্ত করবেন না৷

তিনি চান যাতে বর্ধমানের কেতুগ্রাম,আউশগ্রাম, মঙ্গলকোট থেকে সরে এসে বর্ধমান জেলায় যুক্ত হোক বীরভূম থেকে সরে এসে৷
মঙ্গলকোটের বিধায়ক ও রাজ্যের গ্রন্থাগার মন্ত্রী বর্ধমানের সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের কাছে এভাবেই দলেরই নেতা তথা বীরভূমের তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলকে সতর্ক করলেন৷ একই সাথে প্রকাশ্যে এল সিদ্দিকুল্লা আর অনুব্রতের ঝামেলা৷ দলের মধ্যেকার দ্বন্দ্ব আর থাকছে না ঘরে,বেরিয়ে আসছে সকলের সামনেই৷

মঙ্গলকোট বড়ো এলাকা৷ প্রতিটা পঞ্চায়েতের মানুষের সাথে যে দলকে মিশতে হবে তা রাজ্যেরমন্ত্রী খোলাখুলিই বলেন৷ পাশাপাশি পুলিশকেও বলেন সজাগ দৃষ্টি রাখতে৷ প্রতি সপ্তাহে তিনি যাচ্ছেন মানুষের ঘরে ঘরে,দুয়ারে দুয়ারে সরকার প্রকল্প নিয়ে৷ দলের কর্মীদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন তিনি এদিন৷ তার প্রশ্ন কেন একজন কর্মী তারই দলের কর্মীকে হুমকি দেবে? তারা যে ভালো কাজ করছেন না একথা তিনি বলে হুশিয়ারি দেন৷

সোচ্চারে বলেন,”আমি চাইলে ২০০—৫০০গাড়ির মিছিল করতেই পারি,কিন্তু সুশৃঙ্খল মানুষ আমি,মমতা ব্যানার্জীর প্রতি আস্থা রাখি৷”

এদিন মন্ত্রী আরও বলেন যে,”অনুব্রতবাবু বিজেপি করেন কিনা জানি না ,তবে তার সাথে যারা আছেন তারা গণ্ডগোল করার চেষ্টা করছেন তা দায়িত্ব নিয়ে বলতে পারি৷”

 

সিদ্দিকুল্লা নিজেও মঙ্গলকোটের উন্নয়ন চান বলে জানান৷ কিন্তু সেই এলাকায় বিঝেপি যাতে হুঁল ফোটাতে না পারে সেই চেষ্টা করতে হবে এলাকায় ভারপ্রাপ্ত দলের সংগঠককেই৷ বলাই বাহুল্য তিনি পরোক্ষে অনুব্রত মণ্ডলকেই নিশানা করলেন৷

এভাবেই যে সিদ্দিকুল্লা—অনুব্রত দ্বন্দ্ব ক্রমশ বাড়ছে তার ছবি স্পষ্ট৷