“যদি শুভেন্দু অধিকারীর হিম্মত থাকে নন্দীগ্রামে দাঁড়ান,বুথে বুথে শুভেন্দু তৈরী করবো”,বিস্ফোরক মদন মিত্র

সম্প্রতি দলবদল করেছেন শুভেন্দু অধিকারী৷ ২১বছর তৃণমূল পার্টির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন তিনি৷ মেদিনীপুরে একাই একশো ,সেই শুভেন্দু অধিকারী মন্ত্রীত্ব আর বিধায়কের পদে ইস্তফা দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দিলেন বিজেপিতে৷ বিধানসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূলের কাছে এটা বেশ বড়সর ধাক্কাই বলা চলে! গেরুয়াশিবিরের সদস্যপদ নেওয়ার পর থেকে নানান সভামঞ্চ থেকে রোজই একহাত নিচ্ছেন তৃণমূলকে৷ তোপ দাগছেন মমতা আর অভিষেককেও৷এবার পাল্টা দিলেনাতৃণমূল নেতা মদন মিত্র৷ শুভেন্দু দল ছাড়ার পর থেকেই তৃণমূলের একাংশ তাকে বলছেন “গদ্দার”,”বিশ্বাসঘাতক”৷ রাজ্যের প্রাক্তন পরিবহণমন্ত্রী মদন মিত্রকে এবার দেখা গেল স্বমহিমায়৷

পানিহাটির একটি সভাতে উপস্থিত হয়ে মদন মিত্র শুভেন্দু অধিকারী ,মুকুল রায়কে তুলনা করলেন পলাশীর যুদ্ধের বিশ্বাসঘাতক জগৎ শেঠ,উমিচাঁদের সঙ্গে! এদিন এক অর্থে আক্রমণ হানলেন শুভেন্দুর প্রতি৷ শুভেন্দুকে বিঁধে বলেন,”শুভেন্দু কোনো বাঘ নয়,ও কাগুজে বাঘ৷”

শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগ দিয়ে সেই মঞ্চেই দাঁড়িয়ে বলেছিলেন যে বিজেপি যদি তাকে পতাকা লাগাতে বলে তাই তিনি করবেন৷এই প্রসঙ্গে এদিন মদনবাবু বলেন যে শুভেন্দু এমন বলছেন কারণ তিনি জেনে গিয়েছেন যে তাকে বিজেপি ছিবড়ে করে ফেলে দেবে৷ ওই দলে তিনি কিছুই পাবেন না৷ শুভেন্দুকে তুলোধনা করে মদন মিত্র আরও বলেন শুভেন্দু ক্ষমতার অপব্যবহার করেছিল,দলকে পাল্টা কিছুই দেননি! এমনকি হেলিকপ্টারে মালদহ,মুর্শিদাবাদ গিয়েছেন৷তবুও দলকে বদলে দেননি কিছুই,এমনটাই অভিযোগ মদন মিত্রের৷

নন্দীগ্রামের সূত্রে প্রায় চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন শুভেন্দুকে! বলেন,”যদি শুভেন্দু অধিকারীর হিম্মত থাকে,নন্দীগ্রামে দাঁড়ান,আমি পার্টি নেতৃত্বকে বলবো যে আমি নন্দীগ্রামে দাঁড়াতে চাই৷” সম্প্রতি মদন মিত্র পেয়েছেন রাজ্যের পরিবহণ দফতরের কিছু দায়িত্বও৷ ভোটের আগে পানিহাটির সভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হয়ে প্রচার করতে দেখা গেল মদন মিত্রকে৷ তার মুখে শোনা গেল মিঠুন চক্রবর্তীর জনপ্রিয় সংলাপ,”মারবো এখানে লাশ পড়বে….”

মদনবাবু এদিন আরও বলেন যে তিনি বুথে বুথে শুভেন্দু অধিকারী তৈরী করতে না পারলে পার্টি ছেড়ে দেবেন৷ ঘাসফুল শিবিরে বেশ গুরুত্ব বাড়ছে তার এ ছবি পরিষ্কার৷