জেপি নাড্ডার কনভয়ে ভাঙচুর, অভিযোগ শাসকদলের বিরুদ্ধে, সৌগত বললেন, ‘কী দরকার ছিল অভিষেকের কেন্দ্রে খোঁচানোর’

বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা এসেছেন বঙ্গ সফরে৷ বৃহস্পতিবার তার একটি রাজনৈতিক কর্মসূচী ছিল ডায়মণ্ড হারবার৷ সেই কর্মসূচীতে যাওয়ার সময়েই এদিন ছড়াল উত্তেজনা৷ বৃহস্পতিবার দুপুরে জগৎপ্রকাশ নাড্ডার কনভয় আটকানোর অভিযোগ ওঠে শাসকদলের বিরুদ্ধে৷ ডায়মণ্ড হারবার যাওয়ার পথে শিরাকোল,সরিষা সহ আরও অনেক জায়গায় তার কনভয় আটকানো হয়৷ বিজেপি নেতৃত্ব সরাসরি আঙুল তোলে তৃণমূলের দিকেই৷ তাদের দাবী শাসকদলের আশ্রিত গুণ্ডারাই এইসব কাণ্ড করেছে৷ বিজেপির আরও অভিযোগ যে কনভয়ের একাধিক গাড়ির ওপর গুণ্ডারা লাঠি,ইট ইত্যাদি নিয়ে হামলা চালায়৷

জেপী নাড্ডার গাড়ির কাচ ভাঙেনি,কারণ তার গাড়ির কাচ বুলেট প্রুফ৷ তিনি আসলে জেড প্লাস শ্রেণির নিরাপত্তা পান৷ ফলে তার গাড়ির ক্ষতি না হলেও অন্যান্য গাড়ির ক্ষতি হয়েছে বলে জানা যায়৷ কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাশ বিজয়বর্গীয়ের গাড়ির উইন্ডস্ক্রিন ভেঙেছে ৷ পাশাপাশি সংবাদমাধ্যমের গাড়ি এবং একটি বেসরকারি বাসের কাচও ভাঙচুর করা হয় বলে সূত্র মারফৎ খবর৷

তবে এই গোটা বিষয়টি সম্পর্কে তৃণমূল নেতা সৌগত রায় প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন৷ তিনি সরাসরি কটাক্ষ করেছেন জেপি নাড্ডাকে৷ তার বক্তব্য, জেপি নাড্ডা কোন দরকার ছিল অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের কেন্দ্রে গিয়ে খোঁচানোর!

বিজেপির তরফে দাবী করা হয়েছে যে রাস্তায় কোনো পুলিশি নিরাপত্তা ছিল না৷ এই প্রসঙ্গে সৌগত রায় বলেন,”জেপি নাড্ডা তো দেশের প্রধানমন্ত্রী বা রাষ্ট্রপতি নন যে ওনার সুরক্ষার জন্য রাস্তা জুড়ে পুলিশ মোতায়েন করতে হবে”৷

এর পাশাপাশি এদিন এও দেখা যায় যে জেপি নাড্ডার কনভয় যখন ডায়মণ্ড হারবারে ঢুকছে তখন শোনা যায় তৃণমূলের এক ধর্না মঞ্চ থেকে স্থানীয় নেতার বক্তব্য৷ স্থানীয় তৃণমূল নেতার গলায় ছিল বিজেপিবিরোধী সুর৷ তিনি বলেন,”বিজেপি এ দেশে গণতন্ত্রের কলঙ্ক৷” সেই কারণেই বিরোধীতা জানানো হচ্ছে তাদের তরফে৷

অন্যদিকে সৌগতবাবুর প্রতিক্রিয়া শুনে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন যে ওনার লজ্জাবোধটুকুও চলে গেছে এবং তাতে তিনি অবাক হচ্ছেন৷ তিনি আরও বলেন যে বাংলায় গুণ্ডারাজ চলছে বহুদিন ধরেই৷ রাজ্যে পুলিশ তৃণমূলের ক্যাডার হয়ে গেছে বলে দাবী বিজেপির রাজ্য সভাপতির৷ এছাড়াও দেখা যায় যখন ডায়মণ্ড হারবারে বিজয়বর্গীয়ের গাড়ি পৌঁছায় ,তার গাড়ির কাচ ভেঙেছে৷ হাতে—পায়ে চোট পেয়েছেন বলেও দাবী তার৷

দিলীপ ঘোষ রাজ্য সরকারকে তীব্র আক্রমণের সুরে এদিন বলেন ,”গোটা দেশ দেখুক একটা সর্বভারতীয় রাজনৈতিক দলের সভাপতির ওপর কেমন হামলা করেছে তৃণমূলের হার্মাদ বাহিনী৷”
এই ঘটনার নিন্দা করেছেন তিনি এবং জনগণই এর বিচার করুক এমনটাই চান দিলীপ ঘোষ৷ তার মতে বাংলায় গণতন্ত্র বলে কিছু বেঁচে নেই৷ মানুষই একদিন এর জবাব দেবে বলেও বিশ্বাস দিলীপ ঘোষের৷