চলতি মাসে বঙ্গসফরে আসছেন অমিত শাহ, তৃণমূলে ভাঙনের আশঙ্কা, বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন শুভেন্দুও

সম্প্রতি বাংলার সফরে এসেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা৷ এরপরই রাজ্যে আসতে চলেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ৷ চলতি মাসের ১৯ আর ২০তারিখে তিনি বাংলায় থাকবেন৷ দুদিনই বিজেপির কর্মীদের সাথে বৈঠক করবেন৷ রাজ্যের রাজনৈতিক পরিস্থিতি হবে বৈঠকের আলোচ্য বিষয়৷ তবে প্রথমে জেপি নাড্ডা তারপর এই মাসেই অমিত শাহের আগমন বাংলার রাজ্য রাজনীতিতে মোড় ঘোরাবে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ৷

এমনকি অনেকে মনে করছেন যে তৃণমূলে বড়োসরো ঝড় উঠতে পারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর আসায়৷ এমনিতেই ২০২১—এ বিধানসভা নির্বাচন,আর তার আগেই তৃণমূলের অভ্যন্তরে ক্রমে বেড়েই চলেছে দ্বন্দ্ব৷ দিলীপ ঘোষ কয়েকদিন আগে এ বিষয়ে বলেছিলেন যে তৃণমূল সেমসাইড গোল খেয়ে ভাঙনের পথে৷ সেই সম্ভাবনাই যেন আরও ঘনীভূত হচ্ছে শাসকদলের ঘরে৷ দলের যোগ্য সৈনিক শুভেন্দু অধিকারী পর্যন্ত মন্ত্রীত্ব থেকে পদত্যাগ করেছেন৷ এরপর থেকে একে একে সমস্ত হেভিওয়েট তৃণমূল নেতাদের গলাতেই শোনা গেছে দলবিরোধী সুর৷ রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় থেকে শুরু করে মদন মিত্র,শীলভদ্র দত্ত সকলেই প্রকাশ্যে জানিয়েছেন দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ৷ এছাড়াও নানান জেলার তৃণমূল নেতাদের মুখেও শোনা গেছে দল সম্পর্কে বিরূপ মন্তব্য৷

সেখান থেকে দাঁড়িয়ে মনে করা হচ্ছে যে নির্বাচনের প্রাক্কালে অমিত শাহ—এর বঙ্গসফর তৃণমূলকে নিয়ে যাবে ভাঙনের পথেই৷ সামনের সারির অনেক তৃণমূল নেতারই বিজেপিতে যোগ দেওয়ার সম্ভাবনার গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে৷ তার মধ্যে সর্বাগ্রে যার নাম আসছে তিনি হলেন শুভেন্দু অধিকারী৷ দলের থেকে যে তার দূরত্ব তৈরী হয়েছে সে ছবি স্পষ্ট৷ সৌগত রায় ,অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সহ পিকের টিমের মিটিং ,উপরন্তু দলীয় নেত্রী মমতার ফোনেও কোনো ফল হয়নি,দলের থেকে ক্রমেই সরেছেন শুভেন্দু৷

গতকাল জেপি নাড্ডার কনভয়ে হামলা হয়,ভাঙচুর চালানো হয় তার গাড়ি সহ আরও বাকি গাড়িতেও৷ এরপরেই অমিত শাহের বাংলায় আসার সময়সূচী নির্ধারিত হল,অর্থাৎ এ থেকে একটা বিষয় স্পষ্ট যে অমিত শাহ বাংলার মাটিতে পা রেখে একহাত নেবেন মমতার সরকারকে৷ কনভয়ে হামলার ঘটনা নিয়ে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের কাছে বিস্তৃত রিপোর্ট চেয়ে পাঠান অমিত শাহ৷ রিপোর্টে পুলিশের নিষ্ক্রিয়তার কথা বলা হয়েছে এবং নাড্ডার সুরক্ষায় গাফিলতি হয়েছে বলেও জানানো হয়েছে সেই রিপোর্টে৷

এছাড়াও বৃহস্পতিবার রাতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাসভবনে কালি লাগিয়ে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে বিজেপির বিরুদ্ধে৷ এ সম্পর্কে বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু বলেন,”এটা অনেক ছোট ঘটনা,আগামী দিনে এর থেকে বড়সর কিছু দেখা যাবে,ওরা একটা মারলে আমরা চারটে মারবো৷”

বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে বাংলার রাজ্য—রাজনীতিতে কি বিশাল পরিবর্তন ডেকে আনবে অমিত শাহের বঙ্গসফর? সেদিকেই তাকিয়ে গোটা বাংলা৷