বিজেপির উত্তরকন্যা অভিযানে বিজেপি কর্মীর মৃত্যুর অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে, প্রতিবাদে ১২ঘণ্টা বনধের ডাক আজ

গতকাল বিজেপির উত্তরকন্যা অভিযান ঘিরে উত্তপ্ত হয়েছিল শিলিগুড়ি শহর৷ এদিন সকাল থেকেই দলে দলে বিজেপি কর্মী সমর্থকরা বিভিন্ন জায়গা থেকে মিছিল করে এগোতে থাকে উত্তরকন্যার দিকে৷ পুলিশ ব্যারিকেড দিয়ে মিছিল আটকালে ব্যারিকেড ভেঙে তারা এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে৷ আর তার ফলেই পুলিশ আর বিজেপি কর্মীদের মধ্যে বেঁধে যায় একপ্রকার খন্ডযুদ্ধ৷ ঘটনাস্থলে মৃত্যু হয় বছর পঞ্চাশের উলেন রায় বলে এক বিজেপি কর্মীর৷ আহত অবস্থায় তাকে শিলিগুড়ির এক বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে মৃত বলে ঘোষণা করে ডাক্তাররা৷

সোমবার রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে আমফান,করোনা দুর্নীতি ,বেকারত্বের হার,চা—শ্রমিকদের দুরবস্থা সহ একাধিক অভিযোগের ভিত্তিতে উত্তরকন্যা অভিযানের ডাক দেয় বিজেপির যুব মোর্চা৷ আর সেই অভিযানকে কেন্দ্র করেই ধুন্ধুমার পরিস্থিতির সৃষ্টি হল শিলিগুড়িতে৷

বিজেপির কর্মসূচীকে “হিংসাত্মক” বলে দাবী করা হয় পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের তরফে৷ আজ সোশ্যাল মিডিয়াতে একটি পোস্টের মাধ্যমে পুলিশের তরফে জানানো হয় যে ,গতকাল একটি রাজনৈতিক দলের অভিযানে সেখানকার কর্মী সমর্থকরা অত্যন্ত হিংসাত্মক কার্যকলাপ করেছে৷ তারা রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়েছে৷ ব্যারিকেড ভাঙতে বাধা দিলে পুলিশকে লক্ষ্য ইট—পাটকেল ছোঁড়া হয়েছে বলেও অভিযোগ করা হয়েছে৷ এমনকি তাদের দাবী অনেক সরকারী সম্পত্তিও তারা ভাঙচুর করেছেন৷তারা এও জানিয়েছেন যে পুলিশের লাঠিচার্জে ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়নি ,দেহ ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে ,রিপোর্ট এলেই সঠিক কারণ জানা যাবে৷

অন্যদিকে বিজেপির রাজ্য সভাপতি এই প্রসঙ্গে বলেন,”আমাদের ওপর কাঁদানে গ্যাসের শেল ,জল কামান নিক্ষেপ করা হয়৷’ তিনি আরও বলেন যে তাদের একজন কর্মীর মাথা ফেটেছে,একজন মারাই গেছে৷ বিজেপি নেতৃত্বের দাবী যে তাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে বাধা দিয়েছে পুলিশ প্রশাসন৷

তবে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের দাবী যে তারা নিজেদের সংযম করেছে এবং উত্তেজিত জনতাকে থামাতে যতটুকু প্রয়োজন ততটুকুই করেছেন৷ শুধুমাত্র জলকামান আর টিয়ার গ্যাসের প্রয়োগ করা হয়েছে কিন্তু বিজেপি সশস্ত্র মিছিল করে পুলিশকে আক্রমণ করেছে৷ কৈলাশ বিজয়বর্গীয়ের নেতৃত্বে একটি মিছিল আসে জলপাই মোড় থেকে এবং দিলীপ ঘোমের মিছিল আসে ফুলবাড়ি থেকে৷ মিছিলটি ফ্লাইওভার পেরোনোর পরই বাধাপ্রাপ্ত হয় ৷ ক্ষুদ্ধ কর্মী সমর্থকরা ব্যারিকেডে আগুন লাগিয়ে দেয় এবং পাশাপাশি এনএইচপিসির বাংলো থেকে বেরোতেই দিলীপ—সায়ন্তনকে আটকানো হয় বলে অভিযোগ বিজেপি নেতৃত্বে তরফে৷ নিশীথ প্রামাণিক ঘটনাস্থলে এলেও এগোতে পারেননি বেশিদূর৷ পুলিশের জলকামান আর টিয়ার গ্যাসের শেল উপেক্ষা করে এগিয়ে যায় পদ্মশিবির,শ্লোগান তোলেন “জয় শ্রীরাম”৷

তৃণমূল সাংসদ জানান যে বিজেপির অভিযান পুরোপুরিই ব্যর্থ তা বোঝাই যাচ্ছে৷ তার অভিযোগ এর আগেও নবান্ন অভিযানের সময় বিজেপি পুলিশকে বিভিন্নভাবে আক্রমণ করেছে৷ বিজেপি হিংসাত্মক রাজনীতি করছে৷ তবে বিজেপির তরফে অভিযোগ যে তাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে বাধা দেওয়া হয়েছে এবং পুলিশের সাথে ধস্তাধস্তির সময়েই উলেন রায় বলে বিজেপি কর্মীর মৃত্যু হয়েছে বলে দাবী বিজেপি নেতৃত্বের৷ এর জেরেই আজ উত্তরবঙ্গে ১২ঘণ্টার বনধ্ —এর ডাক দিয়েছে বিজেপি৷ বিজেপির পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে তা সাংবাদিক বৈঠকের মাধ্যমেই জানাবেন বলে জানানো হয় বিজেপি নেতৃত্বের পক্ষ থেকে৷