এই ১০ খাবার ডায়েটে রাখলেই উচ্চ রক্তচাপ থাকবে নিয়ন্ত্রণে

বর্তমান জীবনযাত্রার পরিপ্রেক্ষিতে উচ্চ রক্তচাপের সমস্যাটি সাধারণ হয়ে উঠেছে। এটি হাইপারটেনশন নামেও পরিচিত। উচ্চ রক্তচাপের সমস্যাটি সব বয়সের মানুষের মধ্যেই দেখা যাচ্ছে।

গবেষণা অনুসারে, উচ্চ রক্তচাপ ভারতে অকাল মৃত্যুর একটি বড় কারণ। যদি এই রোগে সময় মতো যত্ন না নেওয়া হয় তবে এটি মারাত্মক রূপ নিতে পারে। বেশিরভাগ লোক রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে ভিন্ন ধরণের ওষুধ ব্যবহার করেন।

তবে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা প্রাকৃতিক ডায়েট মেনে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা ভাল বলে মনে করেন। আসুন জেনে নেওয়া যাক কোন জিনিসগুলি ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করলে উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারবেন।

ফাইবার, ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন এ, সি এবং আরও অনেক পুষ্টি সবুজ শাকসবজিতে মজুত রয়েছে। প্রতিদিন সবুজ শাকসবজি খেলে শরীর স্বাস্থ্যকর ও শক্তিশালী হয়। এটি উচ্চ রক্তচাপ এবং হার্ট সম্পর্কিত অন্যান্য রোগের ঝুঁকি হ্রাস করতে সহায়তা করে।

ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিডগুলি হৃদরোগের জন্য খুব ভাল বলে বিবেচিত। এর পরিপূর্ণতার জন্য শরীরে সালমনের চেয়ে ভাল আর কিছু নেই। এই ফ্যাট কেবল শরীরে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে না, রক্ত কোষ এবং প্রদাহকেও প্রভাবিত করে।

লেবু, কমলা লেবু, আঙুর ইত্যাদি বিভিন্ন সাইট্রাস ফলগুলিতে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের অবিশ্বাস্য ক্ষমতা রয়েছে। এছাড়াও এগুলি ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ। এই ফলগুলি হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করে। কিছু গবেষণায় দেখা গেছে, কমলালেবু এবং আঙুরের রস পান করে অনিয়ন্ত্রিত রক্তচাপের ঝুঁকি এড়ানো যায়।

কুমড়োর বীজে উপস্থিত ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম, অ্যামিনো অ্যাসিডগুলি আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। কুমড়োর বীজ থেকে তৈরি ওষধি তেল উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের জন্য কার্যকর বলে বিবেচিত। গবেষণা অনুসারে এর তেল উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা প্রতিরোধ করে।

ফুলকপির মধ্যে সালফোরাফেন রয়েছে যা হার্টজনিত রোগের ঝুঁকি হ্রাস করে। গবেষণা অনুসারে সালফোরাফেন উচ্চ রক্তচাপ হ্রাস করে এবং ধমনীগুলিকে সুস্থ রাখতে সহায়তা করে।

স্ট্রবেরিতে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে। এটি উচ্চ রক্তচাপের মতো মারাত্মক রোগ থেকে শরীরকে রক্ষা করে। অ্যান্থোসায়ানিনে পাওয়া নাইট্রিক অক্সাইড রক্তনালীগুলিতে কঠিন অণুগুলির উৎপাদন হ্রাস করে, যা রক্তচাপের স্তর নিয়ন্ত্রণের দিকে পরিচালিত করে।

ব্রকোলিতে অ্যান্টি-অক্সিডেন্টগুলি উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি কমিয়ে দিতে পারে। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞের মতে ডায়েটে ব্রকোলিকে অন্তর্ভুক্ত করে উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা হ্রাস করা যায়। একটি গবেষণা অনুসারে, প্রতিদিন ব্রকোলি খেলে রক্তচাপের সমস্যা অনেকাংশে হ্রাস করা যায়।

পেস্তায় রয়েছে ফাইবার, প্রোটিন, ভিটামিন সি, দস্তা, তামা, পটাশিয়াম, আয়রন, ক্যালসিয়াম এবং আরও অনেক পুষ্টিগুণ। এটি স্বাস্থ্যের পক্ষে খুব ভাল। এটির নিয়মিত খেলে উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে।

পালং শাকে উপস্থিত পটাসিয়াম, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং নাইট্রেট স্বাস্থ্যের জন্য খুব উপকারী। একটি গবেষণা অনুসারে, প্রতিদিন পালং শাক খাওয়া উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি হ্রাস করে। পালং শাকের মধ্যে ভিটামিন এ, সি, কে এবং আয়রন থাকে যা হৃদপিণ্ডের সঙ্গে যুক্ত সমস্যাগুলি হ্রাস করার পাশাপাশি চোখের জ্যোতি বাড়াতেও সাহায্য করে।

মুসুর ডালের মধ্যে থাকা পুষ্টিগুণ শরীরের রক্তপ্রবাহকে আরও নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। এগুলিতে প্রাপ্ত ফাইবার, ম্যাগনেসিয়াম এবং পটাসিয়াম হৃদরোগের জন্য ভাল।