বাংলার জায়গায় হিন্দিকে প্রাধান্য নয়া মেট্রো স্টেশনের বোর্ডে, বিতর্কের ঝড় সোশ্যাল মিডিয়ায়

কলকাতা মেট্রো রেল কর্তৃপক্ষ এবার জড়িয়ে পড়ল এক নতুন বিতর্কে৷ ভাষা নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হল৷ নতুন মেট্রো স্টেশন হতে চলেছে বরাহনগর আর দক্ষিণেশ্বর৷ আর সেই দুই নয়া মেট্রো স্টেশনেই আটটি বোর্ড লাগানো হয়েছে৷ সবকটিতেই স্টেশনের নাম জ্বলজ্বল করছে হিন্দিতে৷ বরাহনগর আর দক্ষিণেশ্বর লেখা হয়েছে হিন্দি হরফে৷ তবে বাংলাকে বাদ দেওয়া হয়নি পুরোপুরিভাবে৷ হিন্দিকে যতটা প্রাধান্য সহকারে বড়ো হরফে লেখা হয়েছে ততটা গুরুত্ব দিয়ে লেখা হয়নি বাংলা হরফ৷ ইংরেজিকে আরও ছোট হরফে লেখা হয়েছে৷

উপরন্তু,হিন্দি হরফকেই বেশি উজ্জ্বল করে তোলার জন্য পশ্চাতে ব্যবহার করা হয়েছে গাঢ় নীল রঙ৷ বাংলা আর ইংরেজির ক্ষেত্রে পশ্চাতে ব্যবহার করা হয়নি কোনো গাঢ় রঙ৷ ব্যবহৃত হয়েছে শুধু সাদা রঙ৷ সুতরাং খুব ভালোভাবে যে ভাষা চোখে পড়ছে তা হল হিন্দি৷

দক্ষিণেশ্বর থেকে নোয়াপাড়া মেট্রোপথের যে দুই নয়া স্টেশনের কাজ চলছে তা এখন প্রায় শেষ পর্যায়ে৷ আগামী সপ্তাহেই লাইনে ট্র্যাকের ওপর দিয়ে মেট্রো চলাচল করিয়ে দেখানো হবে৷ পরীক্ষা—নীরিক্ষা চলবে বলেও খবর পাওয়া গেছে৷ সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে চলতি মাসে বা নতুন বছরের শুরুতেই চালু হতে পারে মেট্রো পরিষেবা৷

মেট্রো স্টেশনের বোর্ডগুলোতে হিন্দি ভাষার ব্যবহার দেখে রেল সংগঠনের এক সদস্য জানান,”ভাষা নিয়ে এই জবরদস্তি কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না৷সর্বদা যে কোনো স্টেশনের নামকরণে স্থানীয় ভাষাকেই গুরুত্ব দেওয়া উচিৎ বলে মনে করেন তিনি৷ তার দাবী,যেভাবে স্টেশনের নাম লেখা হয়েছে তাতে বেশি চোখে পড়ছে হিন্দি হরফই৷

তবে এ প্রসঙ্গে মেট্রোর মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক ইন্দ্রাণী বন্দ্যোপাধ্যায় জানান যে মেট্রো স্টেশনের সাজসজ্জাকে এখনই চূড়ান্ত বলে ধরে নেওয়া ঠিক নয়৷ যদি সত্যিই এমন ঘটে তবে তা খতিয়ে দেখা হবে বলে জানান তিনি৷

তবে নিয়ম মেনে বাংলা ভাষাকে গুরুত্ব দেওয়া হবে বলে আপাতত খবর সূত্র মারফৎ!