ভাঙা মদের বোতল দিয়ে নৃশংশভাবে খুন, হোটেলের ঘর থেকে উদ্ধার মহিলার রক্তাক্ত নগ্ন দেহ

মঙ্গলবার খাস কলকাতা শহরে ঘটে গেল এক অমানবিক ঘটনা৷ ঘটনাস্থল নিউটাউনের ডিডি ব্লকের একটি হোটেল৷ এদিন হোটেলের একটি ঘরে এক মহিলা খুন হন,তাকে ধারালো কিছু দিয়ে কুপিয়ে খুন করা হয়৷ পলাতক হত্যাকারী৷ এমন নৃশংস খুনের ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পরই এলাকাজুড়ে শুরু হয় চাঞ্চল্য৷

কি ঘটেছিল আসলে সেদিন?

নিউটাউন টেকনসিটি থানার পুলিশ সূত্রে খবর মিলেছে যে মঙ্গলবার দুপুর একটা নাগাদ এক মহিলা ও সাথে এক ব্যক্তি একসাথে হোটেলে আসেন৷ তারা জানান যে তারা মেদিনীপুর থেকে এসেছেন৷ হোটেলের রুম বুক করতে যা যা নথিপত্রের প্রয়োজন হয়,সমস্ত কিছু দেখিয়েই তারা হোটেলের ২০১নম্বর ঘরে ওঠেন৷

রুমে ঢুকেই ঘণ্টাখানেকের মধ্যে অর্থাৎ দুপুর দুটো নাগাদ খাবার অর্ডার করেন হোটেলে৷ তারপর হোটেলের লোকেরা তাদের রুমে খাবার দিতে গেলে তারা জানায় যে সন্ধ্যে সাতটায়ী বেরিয়ে যাবে৷ তারপর রাত আটটা বেজে গেলেও ওই মহিলা আর ব্যক্তিটি ঘর থেকে না বেরোনোয় হোটেলের স্টাফরা যান তাদের রুমে! অনেকবার ডাকাডাকিতেও কোনো সাড়াশব্দ মেলে না৷

হোটেলের কর্মীরা বিকল্প চাবি দিয়ে ঘরে ঢোকেন৷ দেখেন ওই মহিলার মৃতদেহ পড়ে আছে,পাশে রয়েছে ভাঙা মদের বোতল৷ মহিলার সাথে যে ব্যক্তি এসেছিল তাকে ঘরে দেখতে না পেয়ে হোটেলের সিসিটিভি ফুটেজ চেক করে দেখা যায় যে বিকেল ৪টে নাগাদ ওই ব্যক্তি হোটেল থেকে বেরিয়ে যান৷ প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিশের অনুমান,মদের বোতল ভেঙে তা দিয়েই কুপিয়ে খুন করা হয়েছে মহিলাকে৷ শরীরের অনেক জায়গায় ক্ষতচিহ্ন মিলেছে৷ অভিযুক্ত যুবকের খোঁজ মেলেনি এখনও!

জানা গেছে মৃতার নাম চুমকি ঘোষ৷ মহিলা বিবাহিত ছিলেন ,তবুও কেন সেই যুবকের সাথে হোটেলে এসেছিলেন বা কি সেই যুবকের পরিচয় তা খতিয়ে দেখা হবে বলে পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে৷