চিন নয়, এবার বিহারের রাজগীরে নীতিশের স্বপ্নের ২০০ ফিট কাঁচের ব্রিজ! মার্চে শুভ উদ্বোধন

বিশ্বের দীর্ঘতম কাচের ব্রিজ,যা দিয়ে অনায়াসে চলাচল করতে পারে মানুষ,রয়েছে চিনে৷ তবে এবার ভারতবাসীর কাছে সুখবর নিয়ে এল বিহার৷ শুনলে চমকে যাবেন! বিহারের রাজগিরে প্রায় শেষ কাচের ব্রিজ তৈরীর কাজ৷ চিনের পাশে এবার নাম জুড়ল ভারতেরও৷ করোনা আবহেই বিহার উপহার দিতে চলেছে কাচের ব্রিজ,চিনের মতোই এটি দিয়েও চলাচল করতে পারবে মানুষ৷পর্যটকদের কাছেও এটি হতে চলেছে অন্যতম আকর্ষণ৷

চিনের হাংজহউ প্রদেশে রয়েছে কাচের ব্রিজ৷ দৈর্ঘ্যে ৮৫ফিট আর প্রস্থে ৬ফুট চিনের কাচের ব্রিজে একসঙ্গে চলাচল করতে পারেন প্রায় ৪০জন পর্যটক৷ বিহারের রাজগিরে কাচ আর স্টিল দিয়ে তৈরী হচ্ছে তেমনই ব্রিজ৷ সম্প্রতি বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার পর্যবেক্ষণ করতে পৌঁছেছিলেন সেখানে৷ খুব শীঘ্রই , নতুন বছরের শুরুতেই পর্যটকদের জন্য খুলে যাবে এ ব্রিজ৷

এটিই হতে চলেছে বিহারের প্রথন স্কাইওয়াক৷ এর সাথে থাকবে জঙ্গল সাফারি৷ রাজগিরের গভীর জঙ্গল ঘিরে তৈরী চিড়িয়াখানাও থাকবে পর্যটকদের কাছে ভ্রমণের অংশ৷ কাচের ব্রিজ তৈরী হয়েছে ১৮টি গ্লাস দিয়ে৷ আটজন পর্যটক একসাথে ৭৫০মিটার অতিক্রম করতে পারবেন পাঁচ মিনিটে৷ এর পাশাপাশি থাকছে এয়ার সাইক্লিং, গোলোন্দা রোপওয়ে সহ আরও অনেক আডভেঞ্চারমূলক স্পোর্টসও৷ এছাড়াও পর্যটকদের কাছে অন্যতম আকর্ষণ হবে প্রজাপতি পার্ক,আয়ুর্বেদিক পার্ক৷

রাজগির এমনিই এক ঐতিহ্যবাহী শহর৷ রয়েছে অনেক ঐতিহাসিক তাৎপর্য্য৷ রাজগিরের মূল আকর্ষণ সোন ভাণ্ডার গুহা,উষ্ণ প্রস্রবণ(ব্রহ্মকুণ্ড) আর পিচ প্যাগোডা৷ পাশাপাশি বিখ্যাত বিশ্ব শান্তি স্তূপ৷ নালন্দা , প্রাচীনকালের গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান৷ মনে করা হচ্ছে এসবের পাশাপাশি কাচের ব্রিজ(স্কাইওয়াক) বিহার টুরিজমের মুকুটে নয়া পালক৷ রাজনীতিবিদ ও জেডিইউ—এর সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় কুমার ঝা টুইটারে স্কাইওয়াকের ছবি পোস্ট করেন সম্প্রতি৷তাতে প্রশংসা করেন নতুন উদ্যোগের এবং ধন্যবাদ জানান বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমারকে৷