ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী জঙ্গির বানানো সুড়ঙ্গ পথে ঢুকে পড়ল পাকিস্তানের ২০০ মিটার ভিতরে!

প্রতিবেশী রাজ্য পাকিস্তান ক্রমাগত ভারতের ক্ষতি করার প্রচেষ্টায় লেগে আছে। যদিও, ভারতীয় জওয়ানরা প্রতিবার তাঁদের প্রচেষ্টা ভন্ডুল করে দিচ্ছে। সম্প্রতি সূত্রের খবর যে ভারতীয় সেনা পাকিস্তানে ২০০ মিটার ভিতরে ঢুকে এক সুড়ঙ্গের খোঁজ পায়, এই সুড়ঙ্গের ব্যবহার নগরোটায় সেনার অভিযানে নিকেশ জঙ্গিরা ভারতে ঢোকার জন্য করেছিল। কেন্দ্রীয় সরকারের এক শীর্ষ কর্তাকে উদ্ধৃত করে টাইমস অফ ইন্ডিয়া-তে প্রকাশিত একটি রিপোর্টে এমনই দাবি করা হয়েছে৷

উল্লেখ্য, জম্মু কাশ্মীরের সাম্বা সেক্টরে ২২ নভেম্বর আন্তর্জাতিক সীমান্তের পাশে জঙ্গি অনুপ্রবেশের চিহ্ন খুঁজে বের করেছিল দেশের সেনাবাহিনী ৷ ওই সুড়ঙ্গ ব্যবহার করেই ভারতে প্রবেশ করেছিল পাক মদতপুষ্ট চার জৈশ ই মহম্মদ জঙ্গি৷ এরপর জওয়ানরা যাতায়াতের সমস্ত বাহনের তদন্ত শুরু হয়। এর সাথে সাথে টোল প্লাজার কাছে নাকাবন্দি করে দেওয়া হয়। এরপর তল্লাশিতে ভারতীয় সেনা জঙ্গিদের দ্বারা অনুপ্রবেশের জন্য ব্যবহৃত ১৫০ মিটার দীর্ঘ এক সুড়ঙ্গের খোঁজ পায়। ২৬/১১ হামলার বর্ষপূর্তিতে কাশ্মীরে বড়সড় হামলার ছক ছিল ওই জঙ্গিদের৷

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই সরকারি কর্তা বলেন, ‘ওই সুড়ঙ্গ ব্যবহার করে পাকিস্তানের ভিতরে প্রায় ২০০ মিটার পর্যন্ত প্রবেশ করেছিল ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী৷ সেখানেই ছিল ওই সুড়ঙ্গের উৎস৷ গত সপ্তাহে কাশ্মীরে নিহত জঙ্গিরা এই সুড়ঙ্গটি ব্যবহার করেছিল৷’এর আগে বিএসএফ-এর রেইজিং ডে-র অনুষ্ঠানেও ওই সুড়ঙ্গের কথা উল্লেখ করেছিলেন বিএসএফ-এর ডিজি রাকেশ আস্থানা৷সুড়ঙ্গের ভিতরে বিস্কুটের প্যাকেট সমেত অন্যান্য খাদ্য সামগ্রীর প্যাকেট উদ্ধার হয়। প্যাকেটে লাহোরের কোম্পানির নাম লেখা ছিল। প্যাকেটে প্যাকেজিং এর তারিখ ২০২০ মে আর এক্সপায়রি ডেট ১৭ ই নভেম্বর ২০২০ লেখা ছিল। জানিয়ে দিই, ১৯ নভেম্বর সেনা জম্মু কাশ্মীরের নাগরোটায় একটি বিশেষ অভিযানে চার জঙ্গিকে নিকেশ করেছিল।যদিও সুড়ঙ্গটি নিয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর পদক্ষেপ নিয়ে বিশদে কিছু বলেননি তিনি৷