জনতার রায়ই হবে বিপ্লব দেবের ভবিষ্যত, এক নজিরবিহীন সিদ্ধান্ত ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর

এবার এক নজিরবিহীন সিদ্ধান্তের পথে হাঁটলেন বিপ্লব দেব৷ তিনি আগরতলার মুখ্যমন্ত্রী৷ বরাবরই তিনি থাকেন খবরের শিরোনামে৷ এমনকী তার মতোন দুঃসাহস কোনো রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর হয়তো নেই৷ আগরতলায় বহুকাল বাম—সরকারের পর বিজেপি এসেছে ক্ষমতায়৷ আগরতলার বিরোধীরা দিন কয়েক আগে শ্লোগান তুলেছিল বিপ্লব দেবকে মুখ্যমন্ত্রীত্বের পদ থেকে অপসারণের জন্য৷ আদেও তিনি মুখ্যমন্ত্রী থাকার যোগ্য কিনা তা যাচাই করতে এবং পাশাপাশি উত্তর পেতে এবার তিনি সরাসরি জনতার দরবারে হাজির হতে চান৷ ত্রিপুরার মানুষের কাছে তিনি রাখবেন এই প্রশ্ন,তারা যদি বলেন যে বিপ্লব দেব মুখ্যমন্ত্রী থাকার যোগ্যই নয়,তবে তিনি জনতার রায়কে সম্মান দিয়ে নিজেই সরে দাঁড়াবেন পদ থেকে৷

বেফাঁস মন্তব্য থেকে শুরু করে নানান দুঃসাহসিক কাজকর্মের ফলে বিপ্লব দেব বরাবরই থাকেন সংবাদপত্রের প্রথম পৃষ্ঠায়৷ বিরোধীদের শ্লোগানে বিপ্লবাবু কষ্ট পেয়েছেন বলে জানান৷ তাই উত্তর পেতে সরাসরি জনগণের কাছে যাবেন তিনি৷ আগামী ১৩ই ডিসেম্বর আগরতলার বিবেকানন্দ ময়দানে দুপুর ২টো নাগাদ উপস্থিত হবেন তিনি ৷ তারপর তিনি সভায় উপস্থিত জনতার কাছে জানতে চাইবেন যে মুখ্যমন্ত্রীর ওপর তাদের ভরসা ও আস্থা আছে কিনা! ত্রিপুরার আম জনতার উত্তরই হবে বিপ্লব দেবের ভবিষ্যত৷ যদি তারা বিপ্লব দেবকে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে না দেখতে চান তবে তিনি সেই পদ স্বেচ্ছায় ও নির্দ্বিধায় ছেড়ে দেবন৷ তার মতে ত্রিপুরায় বাম জমানার পর নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে তারা উন্নয়নের দিশা দেখিয়েছে ত্রিপুরাকে৷

১৩ই ডিসেম্বর বিপ্লব দেবের রাজনৈতিক ভবিষ্যত নির্ধারিত হওয়ার দিন,ত্রিপুরার জনগণের রায় কি? সেদিকেই তাকিয়ে আছে রাজনৈতিক মহল৷ তবে সাম্প্রতিক সময়ে কোনো রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে এমন সাহসী সিদ্ধান্ত নিতে দেখা যায়নি৷