বঙ্গকন্যার দেশজোড়া স্বীকৃতি, দেশের প্রথম এয়ার ট্রাফিক ম্যানেজমেন্টের জেনারেল ম্যানেজার শ্যামলী হালদার

বাঙালি জাতি বরাবরই ইতিহাসের পাতায় রেখেছে নজির৷ আর বাঙালি মেয়েদের অবদানও নানানভাবে ইতিহাসের পাতায় উজ্জ্বল৷ তা আরও একবার প্রমাণিত হয়ে গেল বাঙালি মেয়ে শ্যামলী হালদারের হাত ধরে৷ বাঙালি পেল ভারতজোড়া সম্মান ও স্বীকৃতি৷ দেশের প্রথম এয়ার ট্র্যাফিক জেনারেল ম্যানেজমেন্টের জেনারেল ম্যানেজর পদে বসার সুযোগ পেলেন বঙ্গকন্যা শ্যামলী হালদার৷

দেশের সবচেয়ে স্ট্রেসফুল জব হল এয়ার ট্র্যাফিক ম্যানেজমেন্ট৷ এক মুহুর্ত চোখ সরানো যায় না মনিটর থেকে৷ সাংঘাতিক মনোযোগের দরকার হয় এই কাজে৷ আর সেই গুরুত্বপূর্ণ কাজের দায়িত্বভার নিলেন একজন মহিলা৷ দেশের মেয়েদের কাছে,বিশেষত বাঙালি সকল মেয়েদের কাছে শ্যামলী হালদার এক অসামান্য দৃষ্টান্ত হয়ে দাঁড়ালেন৷ শ্যামলী হলেন পূর্ব ভারতের এয়ার ট্র্যাফিক ম্যানেজমেন্টের জেনারেল ম্যানেজর৷ দেশের মধ্যে সর্বাপেক্ষা বৃহৎ পূর্ব ভারতের আকাশসীমা৷ বিমানবন্দরের এক সূত্রের মাধ্যমে জানা যায় যে , এই আকাশসীমা সবচেয়ে বেশি জায়গা নিয়ে বিস্তৃত৷ পূর্বে মায়ানমার,পশ্চিমে প্রায় নাগপুর,উত্তরে বারাণসী ,উত্তর—পশ্চিমে গুয়াহাটি এবং দক্ষিণে হায়দ্রাবাদ পর্যন্ত ব্যাপ্ত এর সীমানা৷ এই সম্পূর্ণ সীমানার দায়িত্ব থাকবে শ্যামলীর হাতে৷ বিশাল বিস্তৃত পূর্ব ভারতের আকাশসীমায় সমস্ত উড়ান সামলাবেন তিনি৷ মঙ্গলবারই তিনি এই দায়িত্বপ্রাপ্ত হন৷

শ্যামলী সম্পর্কে খানিক জানিয়ে রাখা ভালো৷ ৫৬বছর বয়সী শ্যামলী হলেন প্রবাসী বাঙালি৷ বাবা চাকরীসূত্রে থাকতেন মহারাষ্ট্রের নাগপুরে,সেখানেই তার জন্ম আর বেড়ে ওঠা৷ পড়াশোনা আর কাজকর্ম নাগপুরেই৷ ১৯৮৯সালে ন’জন মহিলার মধ্যে শ্যামলীই পেয়েছিলেন এয়ার ট্র্যাফিক কন্ট্রোলারের দায়িত্ব৷ ১৯৯০সাল থেকে এয়ারপোর্টস অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার এরোড্রোম হিসেবেও কাজ করেছেন তিনি৷ এতবছর ধরে নানান জটিল কাজের ভার সামলেছেন শ্যামলী৷ কখনও তাকে দেখা গেছে জয়েন্ট জেনারেল ম্যানেজারের পদে আবার কখনও হয়েছেন এয়ার ট্র্যাফিক সিস্টেমের ইনচার্জ৷ একসময় প্রশিক্ষণ দিয়েছেন নবাগতদের৷ দীর্ঘ ৩০বছরের অভিজ্ঞতার রয়েছে তার৷ দেশের সর্বাপেক্ষা ঝুঁকিপূর্ণ কাজের দায়িত্বও তাই আজ অভিজ্ঞ ব্যক্তির হাতেই সমর্পিত হল মঙ্গলবার৷

অসম্ভব ঝুঁকি আর সাহস নিয়ে কাজ করতে হয়,প্রতিদিন মাথার উপর থাকে ভীষণ চাপ৷ এ প্রসঙ্গে সাহসী শ্যামলী বলেন চাপ নিয়ে তিনি ভাবেন না৷তার কাছে এই চাপ নতুন কিছুই নয় আসলে৷ তার রয়েছে একটি কন্যা সন্তান,বাড়ি ফিরে তার ফুটফুটে মুখ দেখলেই সব স্ট্রেস যেন তার এক নিমেষে চলে যায়৷

শ্যামলী হালদারের এই স্বীকৃতি আকাশপথেও এবার ভেঙে দিল লিঙ্গ বৈষম্য৷ এতদিন এটিসি—র জেনারেল ম্যানেজারের পদে ছিলেন পুরুষেরাই৷ বঙ্গকন্যার হাত ধরে অবসান ঘটল সেই বৈষম্যের৷