তাপস পালের মেয়েকে চেনেন? সৌন্দর্যে বলিউড নায়িকাদের হার মানাবে সোহিনী, রইলো তার পরিচয়!

টলিউডের অন্যতম অভিনেতা হলেন তাপস পাল। যিনি টলিউডে প্রবেশ করেছিলেন ‘দাদার কীর্তি’ ছবিতে অভিনয়ের মাধ্যমে। যার বিপরীতে ছিল স্বনামধন্য অভিনেতার মহুযা রায় চৌধুরী। আশির দশকে প্রসেনজিৎ, চিরঞ্জিত, অভিষেকের পাশাপাশি তাপস পালও দাপিয়ে অভিনয় করেছিলেন অসংখ্য বাংলা ছায়াছবিতে।

আশির দশকে তিনি একজন খ্যাতনামা অভিনেতা ছিলেন, যার অভিনয়ে মুগ্ধ ছিল গোটা বাংলা। কিন্তু পার্শ্ব নয়, সবকটি ছবিতেই প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন তিনি। দাদার কীর্তি’র পর ‘ভালোবাসা ভালোবাসা’ নামের আরেকটি ছবিতে দেবশ্রী রায়ের সঙ্গে জুটি বেঁধে অভিনয় করে সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন তিনি।

সব মিলিয়ে আশির দশক থেকে ২০২০ দশক পর্যন্ত প্রায় ১০০ র বেশি ছবি তিনি বঙ্গ ইন্ডাস্ট্রিকে উপহার দিয়েছিলেন।

দীর্ঘসময় ধরে তিনি বাংলা সিনেমায় রাজত্ব করেছিলেন। ‘সুরের ভুবনে’, ‘গুরু দক্ষিণা’, ‘মায়া মমতা’, ‘সমাপ্তি’, ‘চোখের আলো’, ‘অন্তরঙ্গ’, ‘সাহেব’, ‘পর্বতপ্রিয়’, ‘দিপার প্রেম’, ‘মেজ বউ’, ‘পথভোলা’, ‘আশির্বাদ’, ‘পরশমণি’, ‘সুরের আকাশ’, ‘শুধু ভালোবাসা’সহ বিভিন্ন জনপ্রিয় চলচ্চিত্রে নায়কের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন এই অভিনেতা।

সেই সময় তাঁর বেশিরভাগ সিনেমার নায়িকা ছিলেন দেবশ্রী রায়। অবশ্য শেষেরদিকে তিনি দেব ও জিতের সঙ্গে কয়েকটি সিনেমা করেছিলেন। কলকাতা ছাড়াও তিনি অভিনয় করেছিলেন বলিউডের ‘অবোধ’ সিনেমাতেও, যেখানে তিনি জনপ্রিয় অভিনেত্রী মাধুরী দীক্ষিতের সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করেছিলেন।

তবে ২০২০ সালের ১৮ই ফেব্রুয়ারী নিজের শেষ ছবি ‘বাঁশি’ ছবির অর্ধেক শুটিং এর মাঝেই প্রয়াত হন অভিনেতা।

তবে এই অভিনেতা অভিনয়ের পাশাপাশি একজন দক্ষ রাজনৈতিক নেতা ছিলেন। তিনি তৃণমূল হয়ে কৃষ্ণনগরের সাংসদ ছিলেন। তবে অভিনেতা বাস্তবে নন্দিনী পালকে বিয়ে করেছিলেন। বর্তমানে তাঁদের একটি মেয়ে আছে, তিনিও একজন যুবতী। তাঁর নাম সোহিনী পাল। সম্প্রতি দেশ করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ধাপে আক্রান্ত।

টলি-বলি মিলিয়ে একাধিক অভিনেতা-অভিনেত্রী ইতোমধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তার মধ্যে কিছুদিন আগেই ‘রান্নাঘর’ এর রবি সুদীপা একটি ফেসবুক পোস্ট করে জানিয়েছিলেন, তাপস পালের স্ত্রী নন্দিনী পালও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। গত মঙ্গলবার তাঁর অবস্থার অবনতি হলে একটি বেসরকারি হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করানো হয়েছে।

সেখানেই চলছে তাঁর চিকিৎসা, পাশে তাঁর মেয়ে সোহিনী দিনরাত মায়ের সেবা করে চলেছেন। তবে সোহিনী এখনো সুস্থ আছেন। বাবাকে হারিয়ে এখন মাকে সম্পূর্ন সুস্থ করে তোলাই তাঁর লক্ষ্য।

তাপস কন্যা সোহিনী পালও কিন্তু ইতিমধ্যেই দুটি বাংলা ছবিতে অভিনয় করে ফেলেছেন। তাঁকে দেখতেও হুবহু তাঁর বাবা তাপস পালের মতোন। সোহিনীর প্রথম ছবি ছিল ২০০৪ সালে অঞ্জন দত্তের ‘বউ ব্যারাক্স ফরএভার’, তাঁর দ্বিতীয় ছবি কৌশিক গাঙ্গুলি পরিচালিত ‘জ্যাকপট’।

যেখানে সোহিনী একজন গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করছেন। বাবার প্রতি মেয়ের ভালোবাসা আবার মেয়ের প্রতি ভালোবাসা ছিল অটুট। সোহিনী বহুদিন আগেই টলিউড ছেড়ে বলিউডের উদ্দেশ্যে মুম্বাইয়ের পাড়ি দিয়েছেন। সেখানে সোহিনীর কাছে কিছুদিন থাকার সময়ে মেয়েকে নিজের হাতে ব্রেকফাস্ট, চা বানিয়ে খাইয়েছিলেন তাপস পাল।

একবার এক সাক্ষাৎকারে তাপস পাল মেয়ের সন্মন্ধে বলেছিলেন ‘পাখির মত মেয়ে আমার, টুকটুক করে কথা বলে’।