শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে চরম মিথ্যাচার! নেটিজেনদের ক্ষোভের মুখে অভিনেত্রী নুসরত জাহান

বিগত কয়েক সপ্তাহ ধরেই বারবার সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচনার বিষয়বস্তু হয়ে উঠেছেন অভিনেত্রী নুসরত জাহান। তার স্বামী নিখিল জৈনের সঙ্গে তার সম্পর্ক, কখনো আবার অভিনেতা যশ দাশগুপ্তের সঙ্গে তার সম্পর্ক, কখনো আবার তার মা হওয়ার খবরে সরগরম সোশ্যাল মিডিয়া।

এবার অন্যরকম এক কেলেঙ্কারিতে ফাঁসলেন নুসরত। ২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সময় ব্যক্তিগত বিভিন্ন তথ্য হলফনামায় দিতে হয়েছিল নুসরতকে বাকি রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের মতই।

সেখানে নুসরত নির্বাচন কমিশনকে বিবৃতি দিয়েছিলেন যে ২০০৪ সালে তিনি ভবানীপুর গুজরাটি এডুকেশনাল সোসাইটি থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করেছেন। এরপর তিনি আর পড়াশোনা করেননি বলে জানান, ফলে তার শিক্ষাগত যোগ্যতা ছিল উচ্চ মাধ্যমিক পাশ।

কিন্তু বসিরহাট কেন্দ্র থেকে ভোটে জেতার পরেই পাল্টে গেছে তার শিক্ষাগত যোগ্যতা। মাত্র কয়েক মাসের ব্যবধানে দেখা গেছে উচ্চমাধ্যমিক থেকে তার শিক্ষাগত যোগ্যতা পাল্টে হয়েছে বি কম অনার্স।

লোকসভার ওয়েবসাইটে যে ব্যক্তিগত তথ্য দিতে হয় সেখানে নুসরত জানিয়েছেন তিনি বি কম অনার্স। ফলাফল লোকসভার ওয়েবসাইটে তার শিক্ষাগত যোগ্যতা নির্বাচন কমিশনকে দেওয়া তথ্য থেকে আলাদা দেখাচ্ছে।

এই দ্বিচারিতা সামনে আসতেই তীব্র ক্ষোভে ফেটে পড়েন নেটিজেনরা। অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেদের মতামত জানান, লেখেন যে সমস্ত রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের আমরা ভোট দিয়ে নিয়ে আসি তাদের এ ধরনের মিথ্যাচার মেনে নেওয়া যায় না। যদিও এই ঘটনা সামনে আসার পর নুসরত এখনো পর্যন্ত কোন মন্তব্য করেননি।