ট্যাটু করে রক্তদান! নেটিজেনদের একাংশের ভুল ধারণার ফলে তীব্র ট্রোলের শিকার হলেন গায়িকা ইমন চক্রবর্তী

রাজ্যে করোনা পরিস্থিতিতে চারিদিকে অক্সিজেন এবং প্লাজমার খোঁজে হাহাকার পড়েছে। তেমনি রক্তের অভাবেও ভুগতে হয়েছে অনেক রোগীকে। এর ফলে অক্সিজেন প্লাজমার পাশাপাশি রক্ত নিয়েও বেড়েছে কালোবাজারিদের প্রকোপ।

এই অবস্থায় টলিউড অভিনেত্রী স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায় এর পরে এগিয়ে এলেন গায়িকা ইমন চক্রবর্তী। গত রবিবার লিলুয়ায় তার এক ছাত্র রাতুলের জন্মদিন উপলক্ষে আয়োজিত একটি রক্তদান শিবিরে রক্ত দান করেন তিনি। কিন্তু সেই রক্তদানের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করতেই তীব্র ট্রোলের সম্মুখীন হতে হয় গায়িকাকে।

নেটিজেনদের একাংশ বিদ্রুপ করে বলেন রক্ত অনেকেই দান করেন, তাই আলাদা করে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করার কিছু নেই। তবে ইমন তার পোস্টের মাধ্যমে লিখেছিলেন যে রক্তদান করার পরে তা সমাজের কিছু উপকারে আসবে ভেবে তিনি অত্যন্ত আনন্দ বোধ করছেন।

নেটিজেনদের একটি বড় অংশ আবার তাকে আক্রমণ করে এই বলে যে তার শরীরে একাধিক ট্যাটু আছে। আর ট্যাটু থাকলে নাকি রক্তদান করা উচিত নয়। তবে প্রকৃতপক্ষে ট্যাটু করার ছয় মাস পর থেকেই নিয়ম মেনে রক্তদান করা যায়।

ইমন যদিও এই অভিযোগের কোনো উত্তর নিজে দেননি। তবে নেটিজেনদের অপর একটি দল এই ভুল ধারণাকে শুধরে দেয় আসল তথ্য সোশ্যাল মিডিয়ায় তুলে ধরে।

এর আগেও ইমনকে বিভিন্ন সময়ে ট্রোলের সম্মুখীন হতে হয়েছিল। সারেগামাপার জাজমেন্ট থেকে শুরু করে বিয়ের পরে শাঁখা না পরা, সমস্ত ক্ষেত্রেই তার প্রতি দিয়ে ধেয়ে এসেছিল নির্মম ট্রোল।

তবে তাতে ইমন যে থোড়াই কেয়ার করেন, তা তার পোস্টের মাধ্যমেই জানিয়ে দিয়েছেন। তার হাসিমুখে রক্তদানের ছবিতে তার অনুগামীরা এবং নেটিজেনদের একাংশ ভালোবাসায় ভরিয়ে দিয়েছেন তাকে।