“বেটি কো পড়ায়া নেহি, বেটি কো জ্বালা দিয়া”, বিজেপিকে তীব্র কটাক্ষ মিমি চক্রবর্তীর

গতকাল বারুইপুরের সভাতে দাঁড়িয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতির অশালীন মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে একহাত নিলেন যাদবপুরের সাংসদ মিমি চক্রবর্তী৷ বারুইপুরে এদিন ছিল একটি সভা,সেখানে উপস্থিত ছিলেন মিমি৷ বেশ খানিকক্ষণ বক্তৃতা দেন তিনি৷ সমাগম হয়েছিল বহু মানুষের৷ সেই সভার মঞ্চে দাঁড়িয়েই নিশানা করলেন দিলীপ ঘোষকে৷ দু—তিন আগে বঁনগার এক সভাতে বক্তৃতা রাখার সময় দিলীপ ঘোষ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে করেন কুরুচিকর মন্তব্য করেন৷ প্রকাশ্যেই ব্যবহার করেন গালিগালাজ৷ তারপর দিন কয়েক কেটে গেলেও তার এই মন্তব্যকে ঘিরে বিতর্কের অবসান ঘটেনি৷ বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ সবসময়েই তার কিছু মন্তব্যের জন্য থাকেন খবরের শিরোনামে৷ তবে এবারে খানিক শালীনতার সীমা ছাড়িয়ে তিনি মমতাকে “হা**মি” বলে উল্লেখ করেন সেদিনের সভায়৷

এরপরই গতকাল বারুইপুরের সভাতে বক্তৃতার সময় মিমি চক্রবর্তী উগড়ে দেন ক্ষোভ৷ “ছিঃ” শব্দে তিরষ্কার জানান বিজেপির রাজ্য সভাপতিকে৷ মিমি বলেন,”আমাদের দল নারীকে রক্ষা করতে শেখায়,নারীর সম্পর্কে কুরুচিকর কথা বলতে শেখায় না”৷

এদিন তিনি আরও বলেন যে দেশের একমাত্র মহিলা মুখ্যমন্ত্রীকে প্রকাশ্যে গালিগালাজ করা উচিৎ হয়নি বিজেপি নেতার৷ এমনকি কেন্দ্র সরকারের “বেটি বাঁচাও,বেটি পড়াও”শ্লোগানকেও বিদ্রুপ করে বলেন ,”বেটিকো বাঁচায়া নেহি,উসকো জ্বালা দিয়া৷” পাশাপাশি দিলীপবাবুর মন্তব্যকে চূড়ান্ত অশালীন বলেও দাবী করেন মিমি৷ তিনি বলেন, দিদিকে নিয়ে যখন কেউ খারাপ কথা বলে তখন হৃদয়ে লাগে৷ দলের মাথার উপর ছাতার মতো থাকা মমতা ব্যানার্জীর সম্পর্কে কেউ বাজে কথা বললে কি সকলে চুপ করেই থাকবে?—প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন মিমি দর্শকদের উদ্দেশ্যে৷

কয়েকদিন আগেই দিলীপ ঘোষ মমতার সম্পর্কে বলেছিলেন যে “জয় শ্রীরাম” শ্লোগানে ওনার এত অসুবিধে কীসের? রামের দেশে বাস করেন উনি৷ এদিন মিমি বারুইপুরের সভাতে “জয় শ্রীরাম” শ্লোগান নিয়েও খোঁচা দেন বিজেপিকে৷ তিনি বলেন,”জয় শ্রীরাম” তারা বলছেন খুব ভালো কথা,কিন্তু রামের আগেও সীতার নাম আসে,বলা হয় জয় সিয়া রাম৷” সীতা একজন নারী,কিন্তু বিজেপি তা বাদ দিয়েছে৷ নারীকে সবার আগে সম্মান করতে হবে কারণ নারীই মা,তিনিই জন্ম দেন—যাদবপুরের সাংসদের গলায় শোনা যায় নারীদের প্রতি সম্মান জ্ঞাপনের বার্তা৷ মুখ্যমন্ত্রীও একবার বলেছিলেন যে বিজেপি “জয় শ্রীরাম” শ্লোগানকে নিজেদের রাজনৈতিক স্বার্থে ব্যবহার করছে৷

এদিন মিমি বিজেপির শ্লোগানকে আক্রমণ করে বলেন যে “রাম—রহিম দিয়ে ভোট হয় না”৷  পাশাপাশি মিমির মুখে শোনা যায় মমতার একগুচ্ছ প্রশংসা৷ মমতা ব্যানার্জীর জন্যই লড়াই তাদের এ কথাও বলেন সাংসদ তথা অভিনেত্রী৷

মিমি হুঁশিয়ারি দেন বিজেপির উদ্দেশ্যে—,”বাংলাকে এভাবে ভয় দেখানো যাবে না”৷
তৃণমূলের কাজই আসলে মানুষকে ভালো রাখা,তাদের কথা ভাবা এবং মঞ্চে আসলে মাইকই অস্ত্র,দাবী মিমির৷
আগামী ভোটকে কেন্দ্র করে তৃণমূল —বিজেপি সংঘাত রাজ্য রাজনীতিতে রোজই থাকছে শিরোনামে৷