বিয়ে করবার প্রতিশ্রুতি দিয়ে রাতের পর রাত সঙ্গম, পুলিশের জালে ধরা পড়ল কঙ্গনা রানাওতের নিরাপত্তা রক্ষী!

বলিউড অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াতকে নিয়ে কন্ট্রোভার্সি শেষ নেই। সোশ্যাল মিডিয়া হোক কিম্বা নিউজ সবজায়গাতেই তাকে নিয়ে কন্ট্রোভার্সি চলতে থাকে সব সময়।

আবারো কন্ট্রোভার্সি শুরু হয়েছে তবে সেটা কঙ্গনা রানাওয়াতকে নিয়ে নয় তার দেহরক্ষী কুমার হেগড়েকে নিয়ে। সম্প্রতি গোটা সোশাল মিডিয়ায় এই টপিকে সরগরম।

কঙ্গনা রানাওয়াতের দেহরক্ষী কুমার হেগড়ের বিরুদ্ধে উঠেছে ধর্ষণের অভিযোগ। একটি বিউটিশিয়ানকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে দিনের পর দিন তার সাথে অন্তরঙ্গ মুহূর্ত কাটিয়েছেন কুমার।

মিথ্যা প্রতিশ্রুতির দোহাই দিয়েই বারবার বিউটিশিয়ানের সাথে সঙ্গমে লিপ্ত হয়েছেন। এই বিউটিশিয়ানের সাথে কুমার হেগড়ে সম্পর্ক বেশ কয়েক বছরের। কঙ্গনা রানাওয়াতের সাথে অনেকবারই দেখা গেছে তাকে। এবার কঙ্গনা রানাওয়াত আবারো কন্ট্রোভার্সি শিরোনামে তবে সেটা নিজের জন্যে নয় তার দেহরক্ষী কুমার হেগড়ের জন্য।

কুমারের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠার পর থেকেই সে পালিয়ে বেড়াচ্ছিল। নির্যাতিতার সঙ্গে কঙ্গনা রানাওয়াতের দেহরক্ষী কুমার হেগড়ের দীর্ঘ ৮ বছরের সম্পর্ক ।

ডিএন নগর থানায় আন্ধেরির বাসিন্দা অর্থাৎ নির্যাতিতা এফআইআর দায়ের করেছিলেন। কুমার নির্যাতিতার কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা নিয়েছিলেন বলেই জানান ওই নির্যাতিতা। গত ১৯-শে মে এফআইআর দায়ের করেছে মুম্বাই পুলিশ।

কুমার তার এক বন্ধুর মারফত আন্ধেরির বিউটিশিয়ান কে জানিয়েছিলেন তিনি তার সাথে আর সম্পর্ক রাখতে চান না। এরপর কুমারের মা ওই নির্যাতিতাকে ফোন করে জানান যে কুমার সবকিছু ভুলে বিয়ে করতে যাচ্ছে।

৫ ই জুন তার বিয়ে। এত বছর সম্পর্কের পর কুমার বেঁকে বসায় ওই নির্যাতিতা অভিযোগ জানায় থানায়। এরপরই পুলিশ কর্ণাটক থেকে কুমার হেগড়েকে গ্রেফতার করেন। তার বিরুদ্ধে শুধু ধর্ষণ-এর অভিযোগ নয়, জালিয়াতি, সঙ্গমেরও অভিযোগ উঠেছে।