বাংলা সিরিয়াল

সিদ্ধার্থের মাথায় যত্নসহকারে তেল মাখিয়ে মালিশ করলো মিঠাই! যুগলের ঘনিষ্ঠ মুহূর্ত উঁকি মেরে দেখলো পুরো পরিবার

গত দুই তিন মাস ধরে মিঠাই সিরিয়াল থেকে আর চোখ সরাতে পারছেন না দর্শক। একের পর এক মজাদার টুইস্ট দর্শকের মন জয় করে নিচ্ছে। ডিভোর্সের পর ফুলশয্যা থেকে শুরু করে ছুরি এবং কাটা চামচ দিয়ে লুচি আলুর দম খাচ্ছেন মিঠাই এর উচ্ছেবাবু এ রকম নানা রকম টুইস্ট দেখা গেছে মিঠাই ধারাবাহিকে। এবার দেখা গেল মিঠাই উচ্ছেবাবুর মাথায় যত্ন সহকারে কনকচাঁপার তেল মালিশ করে দিল মিঠাই।

গতকালই সম্প্রচারিত হয়েছে মিঠাইয়ের এই তেল মালিশ করে দেওয়া এপিসোডটি। কাজ করতে গিয়ে মাথা যন্ত্রণা করলে মিঠাই বলে তেল মালিশ করে দেবে। প্রথমেই উচ্ছে বাবু এই কনকচাঁপা তেলে বিশ্বাসী না হল পরে মিঠাই কে বলে, “তুমি যা করার করো আমি এই এখানে বসলাম।” তারপরে মিঠাই যত্নসহকারে সিদ্ধার্থের মাথায় তেল মাখিয়ে দেয়। তবে তেল মাখিয়ে দেওয়ার আরামে সিদ্ধার্থ ঘুমিয়ে পড়লে সিদ্ধার্থের চুল বাচ্চাদের মতো করে আঁচরে দেয়।

পরিস্থিতির কারণে হঠাৎই বিয়ে হয়ে যায় উচ্ছেবাবুর। বিয়ের পর থেকে তিনি মিঠাই কে সহ্য করতে না পারলেও এখন অনেকটাই মিঠাইয়ের প্রতি মন গলেছে তার। মিঠাই কে ডিভোর্স দেয়ার জন্য কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন সিদ্ধার্থ। তবে শেষ অব্দি মিঠাই কে ডিভোর্স দেওয়া হয়ে ওঠেনি তার।

রথযাত্রা স্পেশাল এপিসোড এ ডিভোর্সের পর বিয়ের ঘোষণা করা মাত্রই সিদ্ধার্থ আদর্শ বরের মত তেলে বেগুনে জ্বলে ওঠেন। তিনি এই ব্যাপারটি মেনে না নিতে পেরে বলেন মিঠাই কিন্তু এখনো বিবাহিতা। তবে বিয়েতে অবিশ্বাসী সিদ্ধার্থ যে সংসার কোনদিন করতে পারবেন এটাই কেউ ভাবতে পারেন না।

দাদু এখন মিঠাই ও সিদ্ধার্থকে এক করার জন্য নতুন পরিকল্পনা এঁটে বসেছেন। সিদ্ধার্থকে নানাভাবে ট্র্যাপে ফেলে মিঠাই-এর সাথে এক মাস সুস্থভাবে সংসার করানোর পরিকল্পনা এঁটেছিলেন দাদু। সেই পরিকল্পনা ভালোই কাজ করেছে।

সিদ্ধার্থকে ‘এস্ক্যাপিস্ট’ বলায় সেটা অভিনেতার ইগোতে লেগেছে। তাই তিনি বাজি ধরেছেন কারো সাথে এক মাস থেকে তিনি প্রমাণ করে দেবেন বিয়ের বন্ধন বা প্রেমের বন্ধন বলে কিছু হয়না।

ডিভোর্সের পর ফুলশয্যা পর্বে দেখা গিয়েছিল মিঠাই নিচে বিছানা করে আলাদা শুতে গেলে মিঠাইকে কোলে করে নিয়ে এসে বিছানায় শুইয়ে দিয়ে ছিলেন সিদ্ধার্থ বাবু। এছাড়াও অভিনেত্রীর গয়না পড়ে থাকতে কষ্ট হলে অভিনেতা তার গলা কান থেকে আস্তে করে যত্ন সহকারে গয়না খুলে দিয়েছেন।

গয়না খোলাতে গিয়ে মিঠাইয়ের ব্যথা লাগলে সিদ্ধার্থের মনেও নাড়া দিয়েছে সেই আঘাত। এবার সময়ের অপেক্ষা সিদ্ধার্থের মন গলে কিনা কিংবা বিয়ের বন্ধনে তিনি আবদ্ধ হন কিনা তা জানার।

Back to top button