শুট ফ্রম হোম চলছে বেশিরভাগ সিরিয়ালে, সেই নিয়ে মুখ খুললেন পর্দার শ্রী রামকষ্ণ

লকডাউন এর জেরে বলিউড থেকে টলিউড সব জায়গায় শুটিং বন্ধ। কলাকুশলীরা বাড়িতে বসেই শুটিং করতে চাইছেন। করণাকালে শুধু সাধারণ মানুষই নয় অভিনেতা অভনেত্রীদেরো রুজি রোজগারে বেশ টান পড়েছে।

বহু অভিনেতা অভিনেত্রী দের ঘর সংসার চলে অভিনয় করেই। মাসের পর মাস কাজ বন্ধ থাকলে যে কারুর ভাড়ারে টান পড়তে বাধ্য। ঠিক সেই রকমই অবস্থা বাংলার টলিপাড়ায়।

সরকারের নির্দেশ মতে যদি কোনো আর্টিস্ট নিজের বাড়ি থেকে কাজ করতে পারে তাহলে কোনো আপত্তি নেই। আর্টিস্টদের দাবি যদি বাড়ি থেকে কাজ করার নির্দেশ সরকার নিজে দিয়ে থাকে তাহলে সমস্যা হওয়ার কথা নয়।

এমনকি বহু সিরিয়ালের শুটিং বাড়ির মধ্যেই হচ্ছে। এই নতুন শুট ফ্রম হোম মানতে নারাজ ফেডারেশন কর্তৃপক্ষ। তাদের বক্তব্য বাড়ি থেকে কাজ হলে শুধুমাত্র লাভ হবে অভিনেতা অভিনেত্রী ও প্রযোজক পরিচালকদের। অন্যান্য কলাকুশলীদের কোনো প্রয়োজন পরবে না আর তারা না খেয়ে মারা পড়বেন।

ফেডারেশনের মতে বাড়ি থেকে কাজ হলে না দরকার পড়বে টেকনিশিয়ান, নাই বা লাগবে মেকআপ আর্টিস্ট। একটি সিরিয়ালের পিছনে শুধু অভিনেতা অভিনেত্রী বা প্রযোজক পরিচালক থাকেন না সাথে থাকে অজস্র মানুষের পরিশ্রম।

সিরিয়ালও চলবে অভিনেতা অভিনেত্রীদের লাভ হবে কিন্তু এক শ্রেণীর মানুষের যে কত পরিমাণ ক্ষতি হবে সেটি আন্দাজ করা যাচ্ছে না। আগের বছর থেকেই অর্ধেক মানুষ নিয়ে কাজ চলছে, এখন যদি করোনার জন্য শুট ফ্রম হোম শুরু হয় তাহলে সেই মানুষগুলোর কোনো কাজ থাকবে না। এই নিয়ে শুরু হয়েছে আর্টিস ও ফেডারেশনের মধ্যে বিবাদ।

এই বিবাদ নিয়ে প্রথমবার মুখ খুললেন পর্দার রামকৃষ্ণ। ইতিমধ্যেই ছোট পর্দার বেশ জনপ্রিয় এক অভিনেতা হয়ে গিয়েছেন সৌরভ সাহা। তিনি লেখেন, “আমি না আর্টিস্টদের না তো ফেডারেশনকে কাজ কে দোষ দিছি না।

সত্যি তো অভিনয় এখন বহু মানুষের পেশা হয়ে দাঁড়িয়েছে, শুধু অভিনেতা অভিনেত্রী নয় অন্যান্য অনেক মানুষ এই পেশার সঙ্গে যুক্ত। কেউ কাউকে বাদ দিতে পারবেন না। কিন্তু এই ভয়ঙ্কর পরিস্থিতিতে এই ভাবে বিবাদ না করে সবাইকে ঠান্ডা মাথায় আলোচনা করতে হবে।”

অভিনেতা আরও বলেন, “এই সময় আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে দাঁড়াতে হবে। যদি এক ভাগ মানুষ কাজ করতে পারে তাহলে তাদের উৎসাহ দিতে হবে, এই ভাবে কাজ বন্ধ করে দিলে কারুর লাভ হবে না বরং দর্শকও বিনোদন থেকে বঞ্চিত হবেন।”

এই কথাই তুলে ধরেন অভিনেতা। এখনো পর্যন্ত এই বিষয়ে আর নতুন কোনো মন্তব্য করতে কাউকে দেখা যায়নি। তাহলে কি ওয়ার্ক ফ্রম হোম এর মতই শুট ফ্রম হোম এ অভ্যস্ত হতে হবে কলাকুশলীদের।

ইতিমধ্যেই নানা চ্যানেলে অনেক সিরিয়ালই এই নির্দেশ মেনে শুটিং শুরু করেছে। এই নতুন নিয়মে আদৌ কি কোনো লাভ হবে নাকি সেটাই এখন দেখার বিষয়।