ছড়ানো হচ্ছে মিথ্যে কুসংস্কার ও বুজরুকি! জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘মহাপীঠ তারাপীঠ’ বন্ধের দাবি দর্শকমহলের

স্টার জলসার জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘মহাপীঠ তারাপীঠ’ দর্শকের মন কেড়ে নিয়েছিল সাধক বামাক্ষ্যাপা জীবনের নানা জানা অজানা গল্প কাহিনী তুলে ধরে। কিন্তু এবার সেই ধারাবাহিকই বন্ধের দাবি তুলল কলকাতার বিখ্যাত জমিদার পরিবার সাবর্ণ রায়চৌধুরী পরিবার।

তাদের দাবি সাধক বামাক্ষ্যাপা ছিলেন রাজা রামমোহন রায়, ইশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর ও কালীকৃষ্ণ মিত্রের মতই একজন সমাজ সংস্কারক। কালীসাধনার পাশাপাশি তিনি কুসংস্কার, বুজরুকি ও ধর্মের দোহাই দিয়ে মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে ছিলেন।

কিন্তু সাবর্ণ পরিবার এবং দর্শক মহলের দাবি ‘মহাপীঠ তারাপীঠ’ এ সম্পূর্ণ বিপরীত গল্প দেখানো হচ্ছে। সেখানে জলের তলায় নাগরাজ, দৈত্য ইত্যাদি বিভিন্ন কাল্পনিক ঘটনা দেখানো হচ্ছে।

সাবর্ণ রায়চৌধুরী পরিবার পরিষদের সম্পাদক শ্রী দেবর্ষি রায় চৌধুরী দাবি করেন ধারাবাহিকটি অতিনাটকীয় করে তুলতে নির্মাতারা ভুত-প্রেত তন্ত্র সাধনা ইত্যাদি মনগড়া কাহিনী ধারাবাহিকের গল্পের সঙ্গে যুক্ত করছেন।

তাঁর আরও দাবি সাধক বামাক্ষ্যাপা খুব প্রাচীন কোন ব্যক্তি নন। তিনি রাজা রামমোহন রায়ের সমকালীন। তাই দৈত্য এসে মন্দির ভেঙে দিচ্ছে এমন ঘটনা দেখানোর কোন অর্থ হয় না।

এর আগেও ‘রানী রাসমণি’ সহ একাধিক ধারাবাহিক দর্শকদের মনে ইচ্ছাকৃতভাবে ভুল ধারণা ঢুকিয়ে দেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছিল। ‘মহাপীঠ তারাপীঠ’ তার ব্যতিক্রম নয়।

সাবর্ণ রায়চৌধুরী পরিবারের তরফে অবিলম্বে ধারাবাহিকটি বন্ধের দাবি করা হয়েছে। সাধক বামাক্ষ্যাপার নামে এমন মিথ্যাচার করা উচিত নয় বলেই তাদের দাবি।