বাংলা সিরিয়াল

ওস্তাদজির শাস্তির ঠ্যালায় সামান্য বৃষ্টিতে ভিজে অসুস্থ পিলু! ছাত্রীর হাল দেখে অনুশোচনা আহিরের, রইলো ভিডিও

খুব সম্প্রতি জি বাংলার পর্দায় শুরু হয়েছে নতুন ধারাবাহিক পিলু। অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই দর্শকদের মন জয় করে নিয়েছে এই নতুন ধারাবাহিক। গান কেন্দ্রিক এই ধারাবাহিক মনে ধরেছে দর্শকদেরও। এই ধারাবাহিকে নাম ভুমিকায় অভিনয় করছেন মেঘা দাঁ। তার বিপরীতে তার গুরুজি হিসেবে দেখা যাচ্ছে গৌরব রায় চৌধুরীকে। ইতিমধ্যেই তাদের অভিনয় নজর কেড়েছে ধারাবাহিক অনুরাগীদেরও।

ধারাবাহিকের গল্প অনুযায়ী পিলু একটি গ্রামের মেয়ে, যে প্রাণ দিয়ে গান গাইতে জানে। সে লোকগীতিকে নিয়ে যেতে চায় বিশ্বের দরবারে। এদিক-ওদিক গান গেয়ে বেড়ায় সে। তেমনি হঠাৎ একদিন শাস্ত্রীয় সঙ্গীতশিল্পী আদিত্য নারায়ণের বাড়িতে গিয়ে পৌঁছায় পিলু। তার গানে মুগ্ধ হয়ে আদিত্য নারায়ণ তার প্রিয় শিষ্য আহিরকে দায়িত্ব দেয় পিলুকে তালিম দেওয়ার জন্য। গুরুজির নির্দেশ মেনে আহির গানের তালিম দেওয়ার জন্য পিলুকে নিয়ে আসে তাদের গান বাড়িতে। কিন্তু সেখানে আসার পর থেকেই একের পর এক সমস্যার সম্মুখীন হতে থাকে পিলু।

গান পাগোল আহির কঠিন সাধনার মধ্যে দিয়ে গান শিখেছে। সেই কঠিন সাধনাতেই অভ্যস্ত হয়ে পড়েছে সে। গুরুজীর নির্দেশেই পিলুকে গান শেখানোর দায়িত্ব নিয়েছে আহির। গানের পরীক্ষার প্রথম ধাপে উত্তীর্ণ হয়ে গান বাড়িতে প্রবেশ করেছে সে। প্রথম দিনই পিলুর গান মুগ্ধ করেছে সকলকে, প্রশংসাও পেয়েছে সবার। তবে আদিত্য নারায়ণের মেয়ে রঞ্জা অর্থাৎ রঞ্জিনি একেবারেই সহ্য করতে পারেনা পিলুকে। ইতিমধ্যেই তার ঘাড়ে চুরির অপরাধে চাপানোর চেষ্টা করেছিল সে। তবে এবার আহিরের কাছে বকা খেয়ে পিলুর গালে সপাটে চড় কষিয়ে দেয় রঞ্জা। উল্লেখ্য, ধারাবাহিকের গল্প অনুযায়ী পিলু আদিত্য নারায়ণের মেয়ে। তবে সে কথা এখনো কেউই জানে না।

এরপরে গানের রেওয়াজ না করে সকলকে কৎবেল মেখে খাওয়ানোর শাস্তি হিসেবে তাকে বাইরে দাঁড়িয়ে সারাদিন রেওয়াজ করতে বলে তার ওস্তাদজি। তার নির্দেশ মানতে গিয়েই বৃষ্টিতে ভিজে যায় পিলু। অসুস্থ হয়ে পড়ে সে। এরপর বাড়ির কিছু সদস্য তার সেবা-শুশ্রূষা করতে থাকে। এই দৃশ্য দেখে অনুশোচনা হয় আহিরের। কারণ এমনটা হোক সে কখনোই চায়নি। এরপরে গল্পের মোড় কোন দিকে ঘুরবে তা দেখার জন্য চোখ রাখতে হবে জি বাংলার পর্দায়।

Back to top button