বাংলা সিরিয়াল

শেষ অবধি সবার সামনে মিঠাই এর হাতে উদ্দাম মার খেতে হল উচ্ছে বাবুকে! মুহুর্তের মধ্যে ভাইরাল হলো সেই ভিডিও

শেষ অব্দি মিঠাইয়ের হাতে মার খেতে হল উচ্ছেবাবুকে! অন স্ক্রিনে যেমন দুষ্টু মিষ্টির সম্পর্ক মিঠাই ও তার উচ্ছেবাবুর। অফস্ক্রিনে ঠিক তেমনই সম্পর্ক এই জুটির। বেশ কিছুদিন আগেই মিঠাইকে কাবির সিং এর স্টাইলে গুন্ডাদের হাত থেকে রক্ষা করেছিল মিঠাইয়ের উচ্ছে বাবু। তবে শেষ হয়ে আসছে সিদ্ধার্থের চ্যালেঞ্জ নেয়া একমাস।

দাদুর প্ল্যান অনুযায়ী সিদ্ধার্থের সাথে এক মাস স্বামী-স্ত্রী হিসাবে থাকতে রাজি হয়েছিল। জোর গলায় বলেছিলেন, “আমি একমাস ওর সাথে থেকে প্রমাণ করে দেবো যে বিয়ের বন্ধন বলে কিছু হয়না।” তবে ইতিমধ্যেই যে সিদ্ধার্থ মিঠাই কে মনে মনে ভালোবেসে ফেলেছে তা আর বলার অবকাশ রাখে না।

রাখির স্পেশাল গিফট উপলক্ষে সিদ্ধার্থের তিন বোন সিদ্ধার্থের কাছে আবদার করেছে সে যেন মিঠাই কে তার স্ত্রী হিসেবে যোগ্য সম্মান দেয়। এই নিয়ে সিদ্ধার্থ নিজেও চিন্তায় পড়ে গেছে। ইতিমধ্যেই সিদ্ধার্থের কাছে বিদেশ চলে যাওয়ার একটি অফার এসেছে। যেখানে চার বছরের জন্য তাকে হয়তো সিঙ্গাপুরে গিয়ে থাকতে হতে পারে। তবে সিদ্ধার্থ কিছু মুহূর্তের জন্য মিঠাই কে মেনে নেবে ভাবলেও পরক্ষনেই মনে পড়ে যায় তার মায়ের কথা। মনে পড়ে যায় বাবার থেকে পাওয়া মায়ের লাঞ্ছনার দিনগুলো। সেই প্রসঙ্গেই সিদ্ধার্থের কাছে স্বীকার করে, “আমি বিশ্বাস করি বিয়েতে পেইন ছাড়া আর কিছু পাওয়া যায় না।”

এরই মাঝে সম্প্রতি একটি ভিডিও ভাইরাল হয়ে সবার সামনে এসেছে যেখানে মিঠাই ও সিদ্ধার্থের অফস্ক্রিন দুষ্টু মিষ্টি ঝগড়া মুহূর্ত প্রকাশ পেয়েছে। একে অপরের সাথে ঝগড়া করছেন, মিঠাইকে রীতিমত লেকপুলিং করা হচ্ছে। মিঠাই রেগে গিয়ে অভিনেতাকে চিমটি কাটলেন, মারলেন এবং কত কিছুইনা করলেন। তবে চিমটি কাটলে যে লাগে সেটা একেবারেই অস্বীকার করেছেন অভিনেতা। তাই কাজেই মিঠাই আরো রেগে গিয়ে অভিনেতা কে মারার জন্য হাতুড়ি খুঁজতে থাকেন। তবে ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে অভিনেতা মজা করে বলেন, ও এবার হাতুড়ি তুলতে গিয়ে পড়ে যাবে। এই শুনে মিঠাই আরো তেলেবেগুনে জ্বলে ওঠে।

Back to top button