বাংলা সিরিয়াল

মায়ের অনুপস্থিতিতে নিজেই সিদ্ধার্থকে জামাইষষ্ঠী করলো মিঠাই রানী, ‘মিঠাই’ ধারাবাহিকে জামাইষষ্ঠী স্পেশাল পর্ব

বেশ কয়েক সপ্তাহ পর আবারও মিঠাই ধারাবাহিক ফিরেছে খুশির মেজাজে। সিদ্ধার্থ নিজের রিকি দ্যা রকস্টারের বেশ ছেড়ে নিজের আসল নাম নিয়ে ফিরে এসেছে মোদক পরিবারে। আর সিদ্ধার্থ নিজের আসল রূপে ধারাবাহিকে ফিরতে না ফিরতেই মিঠাইয়ের টিআরপি রেটিং আবারো বেড়েছে। TRP তালিকাতে প্রথম স্থানে আবারো মিঠাই জায়গা দখল করে নিয়েছে। যারা এই ধারাবাহিকে নিয়মিত দর্শক তারা প্রত্যেকেই জানেন বর্তমানে ধারাবাহিক জামাইষষ্ঠী স্পেশাল পর্ব দেখানো হচ্ছে।

ধারাবাহিকে সিদ্ধার্থ ফিরে আসার পরেই মিঠাই ওপর আবার বকাবকি মান-অভিমান শুরু করেছে। আর এতেই দর্শক দারুণ খুশি। মিঠাই এবং সিদ্ধার্থের এই খুনসুটি মাখা কেমিস্ট্রি দারুণ পছন্দ করে দর্শক। ইতিমধ্যে দেখানো হয়েছে জামাইষষ্ঠীর দিন মিঠাই কে দারুন বকাবকি করেছে সিড। যার জন্য মিঠাইরানির খুব মন খারাপ সেই জন্য সে সিদ্ধার্থের উপর অভিমান করেছে। এইদিকে সিদ্ধার্থ বুঝতে পেরেছে মিঠাই মনে মনে কষ্ট পাচ্ছে। যদিও পরে সরি বলে মিঠাই এর মান অভিমান ভাঙায় সিড।

জামাইষষ্ঠী স্পেশাল পর্বেই মিঠাইয়ের তার মায়ের জন্য মন খারাপ হয়ে যায়। তার মায়ের কথা বারবার মনে পড়তে থাকে। ওই দিন তার শাশুড়ি জামাইদের আদর আপ্যায়ন করে। তাই মিঠাই তার মায়ের অনুপস্থিতি তে মায়ের ছবি সামনে রেখে জামাইষষ্ঠী পালন করে। এভাবেই ভাবে দেখানো হয় সিদ্ধার্থ এবং মিঠাই এর জামাইষষ্ঠী। একসময় মিঠাই এবং সিদ্ধার্থ এর মা একে অপরের ভালো বন্ধু ছিল তাই সিদ্ধার্থের মায়ের থেকে মিঠাইয়ের না ভালো পোস্তর বড়া বানানো শিখেছিলেন। আর তাই মিঠাই সিদ্ধার্থকে জামাইষষ্ঠীর দিন সেই স্পেশাল পোস্তর বড়া বানিয়ে খাওয়ালো। এছাড়াও এ সিদ্ধার্থ কে মায়ের হয়ে ধুতি পাঞ্জাবি কিনে দিল মিঠাই।

অনেকদিন পর পর দিন মিঠাই এবং সিদ্ধার্থকে এভাবে দেখে দর্শক তো বেজায় খুশি। আবারো সিদ্ধার্থ এবং মিঠাইয়ের কেমিস্ট্রি পর্দায় দেখে নিজেদের খুশি ধরে রাখতে পারছেনা মিঠাই ভক্তরা।

Back to top button