বাংলা সিরিয়াল

মারণ রোগ ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করতে গিয়ে বাদ পড়েছে অর্ধেক ফুসফুস, অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মাকে আগলে রেখেছেন প্রেমিক সব্যসাচী

অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মা এবং বামাখ্যাপার সব্যসাচীর প্রেম কাহিনী তো আমরা সবাই ইতিমধ্যেই জেনে গিয়েছি। কিভাবে ঐন্দ্রিলার কঠিন সময়ে সব্যসাচী তার পাশে থেকে তার মনে সাহস দিয়েছে। সেই গল্পও আমরা শুনেছি। কিভাবে নিজের ব্যস্ত জীবনের মধ্যে দিয়েও ঐন্দ্রিলার জন্য সময় বার করেছে সে। আসল ভালোবাসা হয়তো এমনই হয়।

কিছুদিন আগেই ঐন্দ্রিলার শরীরে অস্ত্রপ্রচার হয়েছে, এখনও কেমো চলছে তার। ঐন্দ্রিলার অনুরাগী এবং শুভাকাঙ্ক্ষী ভক্তরা অভিনেত্রীর শরীরের খোঁজ নিতে প্রায়শই সব্যসাচী কে মেসেজ করে থাকেন। তাদের যথাসাধ্য আপডেটও দেন অভিনেতা।

সব্যসাচী জানিয়েছেন “আমি কাউকেই বিশেষ কিছু বলি না, আসলে ‘ভালো আছে’ বলতে আমার ভয় লাগে। সত্যি বলতে, চোখের সামনে আমি যা দেখেছি এবং নিয়মিত দেখছি, সেটাতে ভালো থাকা বলে না, সেটাকে অস্তিত্বের লড়াই বলে। অবশ্য এইসব খটোমটো কথা কেবলমাত্র আমিই বলি, ওকে যদি কেউ জিজ্ঞাসা করে তাহলে এক গাল হেসে উত্তর দেবে ‘খুব ভালো আছি, আমার রাশিফল ভালো যাচ্ছে’…কথা ছিল সেপ্টেম্বর অবধি চিকিৎসা চলবে, ক্রমে সেটা গুটিগুটি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ডিসেম্বরে।”

এমনকি সব্যসাচী নিজের ইনস্টাগ্রাম পোষ্টের মাধ্যমে জানিয়েছেন প্রতিবার কেমো নেওয়ার পর ঐন্দ্রিলা কতটা কষ্ট সহ্য করে তা আমি নিজের চোখেই দেখি, আসলে সেটাকে ভালো থাকা বলা চলে না, সেটাকে বলে নিজের অস্তিত্বকে বাঁচিয়ে রাখার লড়াই। কেমো নেওয়ার পর ঐন্দ্রিলা রাতের পর রাত ঘুমাতে পারে না, ঠিক মত খাওয়া দাওয়া করতে পারে না। প্রেসার ওঠা নামা করে। শেষে রাতে ঘুমের ওষুধ খেয়ে ঘুম পাড়ানো হয়।

যদিও ঐন্দ্রিলা বাঁচতে চায়, ভীষণই আশাবাদী একজন মানুষ। একটু সুস্থ হলেই পুজোর জন্য অনলাইনে শপিং করতে শুরু করে দেন। বাড়িতে পোষ্য কুকুর রয়েছে তাদের দেখভাল করে এমনকি প্রেমিক সব্যসাচীর উপরের হম্বিতম্বি করেন। সব্যসাচী নিজেকে একজন গোলকিপারের সঙ্গে তুলনা করেন তিনি বলেছেন “আমি শুধু দাঁতে দাঁত চিপে আগলাতে পারি, আমি শুধু বুঝি, গোল না খাওয়া মানে জিতে যাওয়া।”

২০১৫ সালে প্রথমবারের জন্য ক্যান্সার আক্রান্ত হন ঐন্দ্রিলা তখনও অভিনয় জগতে প্রবেশ করেননি। তখন কলেজে পড়াশুনা করতেন তিনি, সেই লড়াইয়ে অবশ্য জিতে গিয়েছেন অভিনেত্রী। এরপর আবার ২০২০ সালে তার শরীরে ক্যান্সার ধরা পড়ে। এবারে এই মারণ রোগ থাবা বসিয়েছে অভিনেত্রীর ফুসফুসে। অস্ত্রপ্রচার বাদ গিয়েছে ঐন্দ্রিলার অর্ধেক ফুসফুস। বর্তমানে তার অনুরাগীরা তার সুস্থ হয়ে ওঠার কামনা করছেন।

Back to top button