বাংলা সিরিয়াল

নিজের গয়না বিক্রি করেই পটকার চিকিৎসার খরচ জুগিয়ে পটকার বিপদে পাশে দাঁড়ালো গুনগুন! গুনগুন আর বাচ্চা নেই, ভাইরাল ভিডিও

স্টার জলসার অন্যতম জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘খড়কুটো’। এই ধারাবাহিক সিরিয়ালপ্রেমীদের পছন্দের অন্যতম একটি ধারাবাহিক। গুনগুন ও সৌজন্যের অনস্ক্রিন রসায়ন পছন্দ দর্শকদেরও। তবে এবার ধারাবাহিকে এসেছে নতুন মোড়। পেটে অসহ্য যন্ত্রণা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে সকলের প্রিয় পটকা। তার সমস্ত চিকিৎসার খরচ নিজের গয়না বিক্রি করে জোগালো গুনগুন। শুরুতেই তাকে ভুল বুঝল বাড়ির সকলে। উল্লেখ্য, ১০-ই জানুয়ারি থেকে এই ধারাবাহিক স্টার জলসার পর্দায় সম্প্রসারিত হবে দুপুরের স্লটে।

ধারাবাহিক অনুযায়ী পেটের অসহ্য যন্ত্রনায় কাহিল হয়ে পড়েছে সকলের প্রিয় পটকা। এই পরিস্থিতিতে গুনগুনের বাবা কৌশিক বাবু তাকে হাসপাতালে ভর্তি করার কথা বলেন। সেখানেই জানা যায়, তার পেটে একটা বাজে ধরনের টিউমার তৈরি হয়েছে, যা এই মুহূর্তে অপারেট না করলে পটকার জীবন নিয়ে সংশয় তৈরি হবে। এই কথা শুনে ভেঙে পড়েছেন সকলেই। পটকার এই অপারেশনের জন্য প্রয়োজন অনেক টাকা। আর এদিকে সৌজন্য স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে সকলের সামনে, সে তার শ্বশুরমশাইয়ের কাছ থেকে কোন আর্থিক সাহায্য নেবে না।

এই পরিস্থিতিতে সকলেই চিন্তিত হয়ে পড়েছিলেন চিকিৎসার খরচা নিয়ে। পটকার এই অবস্থায় ভীষণ মনখারাপ গুনগুনের। এমন কি খাওয়া-দাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে সে। গুনগুন আর আগের মত নেই। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই সে ভালোবেসে ফেলেছে পটকাকে। তাই সে নিজের গয়না বিক্রি করে ব্যাগ ভর্তি টাকা নিয়ে এসেছে পটকার চিকিৎসার জন্য। কিন্তু তার কাছে এতগুলো টাকা একসাথে দেখে বাড়ির সকলেই প্রথমে ভুল বোঝে তাকে।

এরপর সে সকলকে জানায় তার এতোটুকু আত্মসম্মানবোধ রয়েছে যে সৌজন্য বলে দেওয়ার পরেও সে তার বাবার কাছ থেকে টাকা নেবে! সকলের সাথে সাথে তার ক্রেজিও তাকে অবিশ্বাস করে। এরপরে তার বৌদিভাই সকলকে জানায় গুনগুনকে কথা বলার সুযোগটা অন্তত দেওয়া হোক। এরপরে আসল সত্যিটা জানার পর সকলেই নিজেদের ভুলটা বুঝতে পারে। তার ক্রেজিও বুঝতে পারে তার গুনগুন আর আগের মত নেই। এই এপিসোড সম্প্রচারিত হওয়ার পরে আবেগপ্রবণ হয়েছেন দর্শকরাও।

Back to top button