বাংলা সিরিয়াল

এখনকার সিরিয়ালে নেই কোনও গল্প, কোনও সিরিয়ালই আমি ঠিক করে দেখিনা, সিরিয়াল নিয়ে বিস্ফোরক বিপ্লব চ্যাটার্জী, মনোক্ষুন্ন বর্তমানের অভিনেতাদের উপর

বর্তমানের উঠতি নায়ক নায়িকাদের কাছে বাংলা ধারাবাহিকই ভরসা। আজকের যুগে দাঁড়িয়ে বেশিরভাগ নায়ক নায়িকা তাদের অভিনয় জীবন শুরু করেন সিরিয়ালের হাত ধরেই। তবে বর্তমানের এই নবীন প্রজন্মের সঙ্গে মতপার্থক্য রয়েছে অভিনেতা বিপ্লব চ্যাটার্জীর। তার কথায়, একবার তার সাথে এক নবীন প্রজন্মের নায়কের কথা হচ্ছিল। সে অভিনয় জীবন শুরু করার পরপরই নতুন গাড়ি কিনে ফেলে কিন্তু তারপর তার ইএমআই দিতে পারছিল না।

সেই নবীন প্রজন্মের অভিনেতার কথা শুনে বিপ্লব চ্যাটার্জী বলেছিলেন, “আমি নিজে দীর্ঘদিন সিরিয়াল নয়, বহু ছবিতে কাজ করে ১৫ বছর পর একটা সেকেন্ড হ্যান্ড ঝরঝরে গাড়ি কিনতে পেরেছিলাম। তুমি নতুন গাড়িটা কিনতে গেলে কোন সাহসে? ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি অনিশ্চয়তার জায়গা একটা। আজ আছে কাল নেই। তখন সে চুপ করে গিয়েছে। এদের হচ্ছে স্টেটাস সিম্বল শো অফ ষোলআনা চাই। আমাকে দেখাতে হবে। দেখাতে হলেই পা পিছলে আলুর দম হবে। স্টেটাসটাই আজকাল সব। ও দেখাচ্ছে আমিও দেখাবো। আমি একটা বড় গাড়ি নেব, সাউথ সিটির বড় হাইরাইজ ফ্ল্যাটে থাকবো। সেগুলোর ছবি ফেসবুকে দেব। রোজ খবরে হেডলাইন হবো। এইতো চলছে।”

এরপর নবীন প্রজন্মের টয়লেট বলতে গিয়ে অভিনেতা বিপ্লব চ্যাটার্জী বলেছেন বর্তমানে ইন্ডাস্ট্রিতে ভালো অভিনেতা রয়েছে কিন্তু তা সংখ্যায় খুবই কম। এমনকি বর্তমানের পরিচালক ও প্রযোজকদের সম্বন্ধে বিপ্লব চ্যাটার্জির গলায় মিলেছে অভিমান এবং ক্ষোভের সুর।

তার কথায় তাকে বর্তমানে পর্দায় দেখা যায় না মানে এই নয় তার অভিনয়ের ইচ্ছা চলে গেছে। তিনি মনে করেন তাকে বর্তমানে ইন্ডাস্ট্রিতে বিশেষভাবে কেউই পছন্দ করেননা তাই হয়তো তাকে কাজের জন্য কেউই ডেকেও পাঠাননা। শ্রীজিত মুখার্জী ও শিবপ্রসাদ মুখার্জীর কথা উঠতেই তিনি বলেন, “ও বাবাহ! বিশাল মাপের বিরাট ডিরেক্টর ওঁরা। তারা আমার কাছে কেন আসতে যাবেন?” এই পরিচালকদের উপর হালকা হলেও ক্ষোভের সুর মিলেছে বিপ্লব চ্যাটার্জীর গলায়।

শেষে অভিনেতা বলেন বর্তমান প্রজন্ম মধ্যবিত্ত জীবন যাপনে বিশ্বাসী নয়, পছন্দও করেনা। তারা সকলেই স্ট্যাটাস মাইন্টেনে ব্যস্ত। তিনি মনে করেন এখনকার অভিনেতাদের আর কিছু থাকুক আর না থাকুক বড়লোকি চালটা রয়েছে। তার কথায় এই সমস্ত অভিনেতা অভিনেত্রীরা খুবই সাহসী। কারণ তাদের সময় তারা এমন ভাবনা ভাবতে ভয় পেত।

Back to top button