বাংলা সিরিয়াল

‘বউ, বেটা, নাতি-পুতি নিয়ে একটা ভাঙা ঘরেই আছি’, বীরভূমে পরিবারের সকলকে নিয়ে একটি ঘরে থাকেন ভুবন বাদ্যকর, চিনে নিন মানুষটাকে

দাদাগিরি জি বাংলার অন্যতম জনপ্রিয় এক নম্বর রিয়্যালিটি শো। এটি দর্শকদের কাছেও তাদের প্রিয় শো। দাদাগিরির সঞ্চালক হিসেবে দেখা মেলে সকলের প্রিয় দাদা সৌরভ গাঙ্গুলীর। বলাই বাহুল্য, তাকে ছাড়া এই শো রীতিমতো অসম্পূর্ণ। এই রিয়্যালিটি শোতে নিজের দাদাগিরির গল্প বলতে আসেন অনেকেই। সম্প্রতি দাদাগিরির মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন ভুবন বাদ্যকর। যার গান এই মুহূর্তে সোশ্যাল মিডিয়ায় সারা বিশ্ব জুড়ে ট্রেন্ডে রয়েছে।

ভুবন বাদ্যকরের গান ট্রেন্ডে থাকলেও আসল মানুষটাকে চেনেন খুব কম মানুষ। এদিন দাদাগিরিতে এসে নিজের গল্প বললেন ভুবন বাদ্যকর। ছোট থেকেই বীরভূমে বেড়ে উঠেছেন তিনি। সংসারে অভাবের তাড়নায় বাদাম বিক্রি করতে শুরু করেছিলেন ভুবন বাদ্যকর। একটাই ঘরে পরিবারের সকল মানুষদের নিয়ে থাকেন তিনি, এদিন দাদাগিরিতে এসে সেকথা জানালেন নিজেই। এমনকি তিনি কোথায় থাকেন? কি ভাবে থাকেন? সবটা একটি ভিডিওর মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছিল। যা দেখে হয়তো মনে মনে অনেকেই বলেছেন, লোকটার এলেম রয়েছে।

এমনকি তিনি এও জানান, বাদাম বিক্রি করার জন্য তিনি নিজেই এই গান লিখে সুর করেছেন। যা মানুষের পছন্দ হওয়ায় আজ সারা বিশ্বজুড়ে তা ছড়িয়ে পরেছে। মানুষ এই গান নিয়ে প্রতি মুহূর্তে যে সমস্ত রইল ভিডিও বানাচ্ছেন বেশ কয়েকটা ভিডিও বড় স্ক্রিনে ভুবন বাদ্যকরের সামনে দেখানো হয়েছে। তিনি এতকিছু দেখে শুধু একটাই কথা বলেছেন, সবই ভগবানের ইচ্ছা। একেবারে সাধাসিধা গ্রামের মানুষ তিনি, তা তার কথা শুনেই স্পষ্ট হয়েছে। এরপরই সৌরভ গাঙ্গুলী তাকে জিজ্ঞাসা করেন, তার গান নিয়ে যে এত মাতামাতি হচ্ছে, তিনি শেষপর্যন্ত কিছু পেয়েছেন কিনা! তিনি জানান একজন তাকে ৩০ হাজার টাকা দিলেও অন্য কারোর কাছ থেকে সেভাবে কিছুই পাননি তিনি। এদিন দাদাগিরির মঞ্চে এসে খেলে জিতে ফিরেছেন ভুবন বাদ্যকর।

এমনকি নিজের লেখা ও সুর করা গান সকলকে গেয়ে নিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি নিজের ঝুড়ি থেকে প্রত্যেককে দিয়েছেন এক মুঠো করে বাদাম। দাদাকেও দিয়েছেন এক মুঠো বাদাম। এদিন মানুষ ভুবন বাদ্যকরকে আলাদাভাবে চিনলেন অনেকেই। প্রতিদিন তার লড়াই করে বেঁচে থাকার গল্প শুনলেন সকলেই। কয়েকদিন আগে একটি পাঁচতারা হোটেলে পারফর্ম করেছেন তিনি। সেখানে উপস্থিত ছিলেন তারকা জগতের অনেকেই। শোনা গেছে, তিনি নাকি বর্তমানে একটি কিংবা দুটি সঙ্গীত সংস্থার সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন।

Back to top button