বাংলা সিরিয়াল

লাইট ক্যামেরা অ্যাকশন সামলেই একেবারে বাজিমাত! এমনটাই বলছে ‘কৃষ্ণকলি’র অভিনেত্রী অনন্যা গুহর মাধ্যমিক রেজাল্ট

শুটিংয়ের সব কাজ সামলে বাজিমাত? হ্যাঁ এমন টাই শোনা যাচ্ছে, কৃষ্ণকলি ধারাবাহিকের মুন্নি অর্থাৎ অনন্যা মাধ্যমিকে খুব ভালো ফলাফল করেছে বলে শোনা গেছে। চলতি বছরেই অভিনেত্রী মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছেন। এত ভালো পার্টি হবে নাই বা কেন! এই বিশেষ দিনে অভিনেত্রী অনন্যা মাতলেন উদযাপনে।

তবে চলতি বছরের মাধ্যমিক পরীক্ষা না হওয়ায় কম কটুক্তির মধ্যে দিয়ে যায়নি স্টুডেন্টরা। মাধ্যমিক পরীক্ষায় ভালো নাম্বার পেয়ে প্রথম হয়েছে ৭৯ জন। একসঙ্গে এতজন প্রথম হওয়ার ঘটনা এই প্রথম। পরীক্ষা না দিয়েই ওরা ভালো নাম্বার পেয়েছে এরকমই কটুক্তি বারেবারে ধেয়ে এসেছে স্টুডেন্টদের দিকে।

সারাদিন লাইট-ক্যামেরা-অ্যাকশন শোনা মেয়েটিও পরীক্ষায় ভালো নাম্বার পেয়েছে। ৭৮ শতাংশ নাম্বার পেয়েছেন অভিনেত্রী অনন্যা গুহ ওরফে মুন্নি। সেই আনন্দে মঙ্গলবার সারাদিন পরিবারের সঙ্গে হাউস পার্টিতে মেতে উঠেছিলেন অভিনেত্রী অনন্যা। পর্দায় নিখিলের দাদার মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করছেন মুন্নি।

প্রথমে একটু কুটপাঠ করলেও এখন মুন্নি মোটামুটি ভালো মেয়ে হয়ে গেছে। এ প্রসঙ্গে অভিনেত্রী জানিয়েছেন, ‘আমি দারুণ খুশি। পড়াশোনা আর শ্যুটিংয়ের মাঝে একেবারেই স্যান্ডউইচ অবস্থা হয়েছিল আমার। বাবা তো দিনরাত আমার সঙ্গে পরীক্ষার রেজাল্ট নিয়ে রসিকতা করত, তবে বাবা এখন চুপ, মেয়ের সাফল্যে যে বাবা বেজায় খুশি হয়েছে তা আমার বুঝতে বাকি নেই।’

বর্তমানে কৃষ্ণকলি ছাড়াও অভিনেত্রী অভিনয় করছেন প্রতিদ্বন্দী চ্যানেল স্টার জলসায় সম্প্রচারিত গ্রামের রানী বীণাপাণি ধারাবাহিকে।

চলতি বছরে মাধ্যমিক পরীক্ষার পাশের হার ১০০ শতাংশ। এই কারণে নানা রকম মন্তব্য কে ঘিরে ঠাট্টা শুরু করছেন নেট বাসীরা। এ প্রসঙ্গে অভিনেত্রী জানিয়েছেন, ‘এমন তো নয় আমরা পড়াশোনা করিনি, পরীক্ষা দিয়ে এবং পাশ করেই এত দূর এসেছি, অনেকে বলে এই ইউনিট টেস্টে বই খুলে পরীক্ষা হয়। কিন্তু আমি শুটিং ফ্লোর থেকে পরীক্ষা দিয়েছি। আমার কাছে কোনও বই ছিল না!’

Back to top button