শুধু টাকা দিয়েই থামলেন না! শঙ্কর ঘোষালকে কাজ খুঁজে দিলেন ‘বামাক্ষ্যাপা’ সব্যসাচী

করোনা সংকটে স্টুডিওপাড়ার প্রবীণ শিল্পী, শঙ্কর ঘোষালের করুণ অবস্থার কথা দিন কয়েক আগেই সোশ্যাল মিডিয়ায় জানিয়েছিলেন অভিনেতা সব্যসাচী চৌধুরী।

বর্ষীয়ান অভিনেতার থেকে অনুমতি নিয়েই তাঁর দুর্দশার কথা জানিয়ে ফেসবুকে সাহায্যের আর্তি রেখেছিলেন সব্যসাচী। শঙ্কর ঘোষালকে সাধ্যমতো সাহায্যও করেছিলেন সব্যসাচী ও তাঁর বিশেষ বান্ধবী ঐন্দ্রিলা শর্মা।

সেই ডাকে সাড়া দিয়ে প্রচুর মানুষ এগিয়ে এসে অর্থ সাহায্য করেছিলেন প্রবীন শিল্পীকে। তবে সব্যসাচী টেলিভিশন ইন্ডাস্ট্রির একাধিক প্রযোজনা সংস্থা, চ্যানেল কর্তৃপক্ষের কাছে শঙ্কর ঘোষালের হয়ে কাজের দরবারও করেছিলেন।

কারণ শিল্পীর বাঁচার অক্সিজেন যে অভিনয়, তা বুঝে নিতে অসুবিধা হয়নি সব্যসাচীর।

নন-ফিকশনে সুদীপ্তা চট্টোপাধ্যায়ের হাত ধরে ছোটপর্দায় ফিরেছিলেন শঙ্কর ঘোষাল। আর এবার সব্যসাচীর নিজস্ব ধারাবাহিক ‘মহাপীঠ তারাপীঠ’ উল্লেখযোগ্য চরিত্রে দেখা যাবে অভিনেতাকে।

সব্যসাচী শনিবার এই সংক্রান্ত পোস্ট নিজের ফেসবুকের দেওয়ালে শেয়ার করেছেন। জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যেই দু-দিন শ্যুটিং করে ফেলেছেন শঙ্করবাবু। এর আগেও এই সিরিয়ালে একটি ছোট চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি, তবে এবার ট্রাকটি বেশ বড়। শ্যুটিং ফ্লোরে ফিরতে পেরে উচ্ছ্বসিত শঙ্কর ঘোষাল। পুরোহিতের চরিত্রে অভিনয় করছেন তিনি।

শঙ্কর ঘোষাল কাজে ফেরায় স্বস্তির সুর সব্যসাচীর গলাতেও। এক সাক্ষাত্কারে টেলিভিশনের ‘সাধক ব্যামাক্ষ্যাপা’ বললেন- ‘উনি কাজে ফিরেছেন, এরচেয়ে স্বস্তির আক কী হতে পারে!’

মহানায়ক উত্তর কুমারের সঙ্গে ‘প্রতিশোধ’ ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি, দীর্ঘদিন ধরে বাংলা রঙ্গমঞ্চের পরিচিত মুখ, এমনকি কাজ করেছেন ছোট পর্দাতেও। তবে করোনা মহামারীর জেরে কাজ হারিয়ে দুবেলা দুমুঠো অন্ন জোগাড়ের জন্য রাস্তায় নেমে ভিক্ষাও করতে হয়েছে শঙ্কর ঘোষালকে।

রান্নাঘর-এর একটি আসন্ন এপিসোডেও শঙ্কর ঘোষালকে দেখা যাবে। শ্যুটিং ফ্লোর থেকে ছবি শেয়ার করে দিন কয়েক আগেই সুদীপা চট্টোপাধ্যায় লেখেন- ‘ভেবেছিলুম- আর শুটিং করবো না। কিন্তু শঙ্করদার জন্য,সিদ্ধান্ত বদলাতে হলো। শুটিং করলুম- দারুন অভিনেতা শঙ্কর ঘোষালের সাথে।

যাঁরা ওনাকে সাহায্য করতে,ওনার অ্যাকাউন্ট নম্বর চাইছেন- তাঁদের আমার আন্তরিক ধন্যবাদ,কিন্তু ওনার সাহায্যের নয়- কাজের প্রয়োজন।অভিনেতা তো? লাইট,রোল ক্যামেরা আর অ্যাকশন শুনেই দেখুন কত খুশী? আমরাও ওনাকে পেয়ে আপ্লুত,সমৃদ্ধ’।