বহু বছর পর দেখা মিললো বিরল প্রজাতির দুই মাথা বিশিষ্ট জলঢোড়া সাপের, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

পৃথিবীতে নানা ধরনের জীবজন্তু দেখতে পাওয়া যায়। কখনো বিশালকার হিংস্র কুকুর তো কখনো আবার ক্ষুদ্রাকার মাছ। ঠিক তেমনি সম্প্রীতি দেখা মিলিছে দু মুখো সাপের। হ্যাঁ ঠিকই শুনেছেন দু মুখো সাপ। সাধারণত গল্পেই শোনা যেত এই রকম সাপের কথা। আজ বাস্তবেও দর্শন হয়ে গেল।

কিছুদিন আগে টুইটারে এক দুমুখো সাপের খবর ছড়িয়ে পরে। সাপটি দেখতে পাওয়া গেছে সুদূর ইরাকের খুর্দিস্থান অঞ্চলে। সাপটি সর্ব প্রথম দেখতে পান মহম্মদ নামের এক ব্যাক্তি।

তিনি জানান তিনি তার জমিতে চাষ করছিলেন ঠিক সেই সময়ই এক জলাশয়ে এই দুমুখওয়ালা সাপের দেখা পান। ভয় পেয়েগেলেও তিনি সঙ্গে সঙ্গে খবর দেন ইরাক বনদফতরে।

সেই দুমুখো সাপটির ভিডিও টুইটার মাধ্যমে সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে। প্রাণী বিশেষজ্ঞদের মতে এই সাপটি বিষধর নয়। তিনি বলেন, সাধারণত এই ধরনের সাপের বিষ দাঁত থাকে না।

এই ধরনের সাপ জলে এবং স্থলে দুটি জায়গায় থাকতে পারে। সাধারণত এই ধরণের সাপের শরীরের তাপমাত্রা অত্যন্ত বেশি হয়। নিজের দেহের তাপমাত্রা বজায় রাখবার উদ্দেশ্যেই বেশির ভাগ সময়ই জলে অবস্থান করে।

ইরাকে যে সাপটির দেখা মিলেছে সেটির বয়েস এক বছরও হবে না বলেই ধারণা। সাপটি মোতে এত ইঞ্চি লম্বা আর তার ওজন ৮০ গ্রামেরও কম। বলতে গেলে অপ্রাপ্ত বয়স্ক একটি সাপ।

সাপ বিশেষজ্ঞ আরাম গফুর বলেন খুর্দিস্থানে প্রায় ১০ রকম প্রজাতির সাপ দেখতে পাওয়া যায়। যদিও দুমুখো সাপ খুবই দুর্লভ প্রজাতির। সাধারণত ১০০ হাজারের মধ্যে ১টি দুমুখো সাপ জন্ম নিয়ে থাকে। এই দুমুখো সাপটির ভিডিও বেশ ভাইরাল হয়েছে। ইতিমধ্যেই এই সাপটিকে দেখার ধুম পরে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতে।