পোস্ট অফিসের এই স্কিম আপনাকে বানাতে পারে ‘লাখপতি’, শুধুমাত্র ৫০০ টাকা থেকে শুরু করতে পারেন বিনিয়োগ

যে দেশে এফডি এবং ব্যাংকের আমানতের সুদের হার হ্রাস পাচ্ছে ক্রমশ আর তার মধ্যেই পোস্ট অফিসের বিভিন্ন স্ক্রিম সাধারণ মানুষের জন্য স্বস্তি নিয়ে এসেছে।

পোস্ট অফিসের স্কিমগুলি কেবল নিরাপদ এবং ঝুঁকিমুক্ত নয় তারা ব্যাংক আমানতের দ্বিগুণ পর্যন্তও রিটার্ন দেয়। মিউচুয়াল ফান্ড এবং শেয়ারের মতো বিনিয়োগের বিকল্প থাকা সত্ত্বেও সাধারণ মানুষ পোস্ট অফিসের স্কিমগুলিতে সবথেকে বেশি বিশ্বাস করেন।

পোস্ট অফিস পাবলিক প্রভিডেন্ট ফান্ড স্কিম অর্থাৎ পিপিএফের কথা বলা হচ্ছে। সরকার এখন ক্ষুদ্র আমানতের উপর ঘোষিত হারের আওতায় পিপিএফ-তে ৭.১০% সুদের হার ঘোষণা করেছে।

সরকার সময়ে সময়ে এটি পরিবর্তন করলেকরলেও এই স্কিমের সুদের হার খুব বেশি হ্রাস পায় না। এই প্রকল্পের আওতায় একজন ব্যক্তি কেবল একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন।

যেখানে আপনি পিপিএফের অধীনে এক অর্থবর্ষে সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা রাখতে পারবেন। আপনি এটিতে যে কোনও সর্বাধিক পরিমাণ টাকা জমা দিতে পারেন। তবে আপনি আয়করের সেকশনের ৮০ সি-এর আওতায় সর্বাধিক ১.৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ছাড় পাবেন।

ম্যাচিউরিটি হওয়ার পর সুদের আয় পুরোপুরি করমুক্ত থাকবে। এর ম্যাচিউরিটি পিরিওড 15 বছর এবং এটি যখনই এক্সটেন্ড করা হবে সেটি ৫ বছরের জন্য করতে হবে।

অর্থ মন্ত্রক প্রতি তিন মাস অন্তর সুদের হার সংশোধন করে। জুন মাসে সুদের হার ৭.১%। অর্থ মন্ত্রক ৩০ শে জুন সুদের হার নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবে। সুদের আয় প্রতি আর্থিক বছর শেষে গ্রাহকের অ্যাকাউন্টে স্থানান্তরিত হয়।

বর্তমান হার অনুসারে, গ্রাহক যদি প্রতিদিন ১০০ রুপি বিনিয়োগ করেন, তবে ১৫ বছর পরে যখন এটি ম্যাচিওর হলে গ্রাহক ৯৮৯৩১৩১ টাকা পাবেন। যা পুরোপুরি করমুক্ত হবে। ১৫ বছরের মধ্যে আপনার মোট আমানতের পরিমাণ হবে ৫৪৭৫০০ টাকা।

আপনি পিপিএফের বিরুদ্ধে লোনের সুবিধাও পাবেন। যে আর্থিক বছর থেকে আপনি বিনিয়োগ শুরু করেন, পরবর্তী আর্থিক বছর থেকে আপনি লোনের সুবিধা পাবেন। এই সুবিধাটি পাঁচ বছরের জন্য উপলব্ধ।

আপনার অ্যাকাউন্টে জমা হওয়া অর্থের ২৫% পর্যন্ত লোন পেতে পারেন। আর্থিক বছরে একবার লোন নেওয়া যাবে। প্রথম লোন পরিশোধ না হওয়া পর্যন্ত দ্বিতীয় লোন পাওয়া যাবে না। তিন বছরের মধ্যে লোন পরিশোধ করা হলে সুদের হার বার্ষিক মাত্র ১% হবে।

পাঁচ বছরের লক-ইন পিরিয়ডের পরে এক আর্থিক বছরে একবার টাকা তোলা যাবে। এটি আপনার অ্যাকাউন্টে জমা হওয়া অর্থের ৫০% পর্যন্ত তোলা যায়।

অকালে বনধু হওয়া অ্যাকাউন্টের অ্যাকাউন্টধারী অসুস্থ হয়ে পড়লে বা নিজের ও শিশুদের উচ্চ শিক্ষার জন্য টাকা তোলার অনুমতি আছে। তবে এএর জন্য কিছু চার্জ কেটে নেওয়া হয়।