তুর্থী তিথি শেষ হবে আগামীকাল, সর্বসিদ্ধির লক্ষ্যে গণেশকে অর্ঘ্য দিন দুপুরে এই সময়ের মধ্যে, তাহলেই হবে বড় লাভ

হিন্দু শাস্ত্রে দেবতার রূপ যেমন বহুবিধ, তেমনই তাঁদের প্রত্যেকের পূজার জন্য একটি করে বার, একটি করে শুভ তিথি নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছে।

বলা হয় যে এই নির্দিষ্ট বারে এবং নির্দিষ্ট তিথিতে আরাধনা করলে প্রসন্ন হন সেই দেবতা, তাঁর কৃপায় ভক্তের সর্বাঙ্গীণ মঙ্গল সাধিত হয়।

বলা হয় যে সপ্তাহের মধ্যে মঙ্গলবার, মতান্তরে বুধবার শ্রীগণেশের আরাধনার জন্য প্রশস্ত। কিন্তু বর্তমান তিথিসমাবেশের দিকে লক্ষ্য রাখলে শুধুমাত্র এই সপ্তাহের শনিবারটিও সিদ্ধিদাতার বিশেষ পূজার অবসর রচনা করে দিয়েছে।

কেন না, শাস্ত্রে চতুর্থী তিথিটি নির্দিষ্ট করা হয়েছে গজাননের আরাধনার জন্য।

হিন্দু শাস্ত্রে যে কোনও শুভ কাজ সম্পন্ন হয়ে থাকে চাঁদের হ্রাস এবং বৃদ্ধির উপরে নির্ভর করে, সেই মতো মাসের ১৫টি দিন নির্দিষ্ট করা হয় কৃষ্ণপক্ষ রূপে এবং বাকি ১৫টি দিন পরিচিতি পায় শুক্লপক্ষ হিসেবে।

এই হিসেবে মাসে দু’টি চতুর্থী তিথি পাওয়া যায়। একটি শুক্লপক্ষের চতুর্থী তিথি এবং অন্যটি কৃষ্ণপক্ষের চতুর্থী তিথি। এর মধ্যে কৃষ্ণপক্ষের চতুর্থী তিথিটি সঙ্কষ্টী চতুর্থী নামে পরিচিত। আর শুক্লপক্ষের চতুর্থী তিথি বিনায়ক চতুর্থী বা গণেশ চতুর্থী নামে প্রসিদ্ধ।

শাস্ত্রে এই গণেশ চতুর্থীকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। শ্রীগণেশ দেবতাদের মধ্যে প্রথমপূজ্য, তাঁর কৃপাতেই সব রকমের সিদ্ধি এবং জাগতিক ঋদ্ধির অধিকারী হতে পারেন ভক্তেরা।

এই বৈশাখ মাসে পঞ্জিকা অনুসারে তৃতীয়া তিথি বিদ্যমান ছিল ১৫ মে সকাল ৮টা ০০ মিনিট পর্যন্ত। এর পরে শুরু হয়ে গিয়েছে শুক্লপক্ষের চতুর্থী তিথি। এই চতুর্থী তিথি থাকবে ১৬ মে সকাল ১০টা ০১ মিনিট পর্যন্ত।

সেই হিসেবে দেখলে ১৬ মে সকাল ১০টা ০১ মিনিট পর্যন্ত শ্রীগণেশের আরাধনার সময় পাওয়া যাচ্ছে, এই পুরো সময়কালটাই বিবেচনা করা হবে বিনায়ক চতুর্থী রূপে।

কিন্তু শাস্ত্রমতে মধ্যাহ্নকালের মধ্যেই সিদ্ধিদাতাকে অর্ঘ্য নিবেদন করলে সর্বাধিক সুফল লাভ করবেন ভক্তেরা। তাই পূজা শেষ করতে হবে সকাল ১০টা ৫৫ মিনিট থেকে দুপুর ১টা ৩০ মিনিটের মধ্যে।

পূজাপদ্ধতি:

১. শুদ্ধ জলে শ্রী গণেশের অভিষেক সম্পন্ন করে তাঁকে নতুন বস্ত্রে সাজিয়ে কপালে সিঁদুরের টিকা দিতে হবে।

২. দূর্বা অর্পণ করে ধূপ জ্বেলে দিতে হবে।

৩. এম গং গণপতয়ে নমঃ- এই বীজমন্ত্র জপ করতে হবে।

৪. নৈবেদ্যে দিতে হবে ২১টি মোদক বা লাড্ডু।

৫. আরতি অন্তে পূজা সমাপন করা বিধেয়।